শাহারিয়া শাহাদাৎ রির্পোটার ঃ সনাতন হিন্দু সম্প্রাদায়ের বড় ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দুর্গোৎসবের প্রতিমা ৪১ ঘন্টায় দুর্গোপূজায় মূহুর্তের জন্য যায়নি বিদ্যুৎ। পূজা শেষে পরের দিন ০১ অক্টোবর ১১ বার পালিয়েছে বিদ্যুৎ। চাঁপাই নবাবগঞ্জ গোমস্তাপুর উপজেলায় ঈদুল আযহার ঈদের দিন সকাল থেকে সন্ধ্যা পযর্ন্ত থাকেনি বিদ্যুৎ অভিযোগ কিছু সাধারণ মানুষের। রমযান মাসে পাইনি তারা বিদ্যুৎ যে তারাবি নামাজে থাকেনি বিদ্যুৎ। সাহরি রান্না ও খাওয়ার সময় ১অক্টোবর ভোর ৫টা থেকে ১১টা পযর্ন্ত তিনবার পালায় বিদ্যুৎ তারপর দুপুর ১২.০৭ মিনিটে বিদ্যুৎ যায় আসে দুপুর ১.০৭ মিনিটে ১.২৭ মিনিটে যায় ১.৩০মিনিটে সময় মূহুতের বিদ্যুৎ দেখা দেয়ে আবার ২.১০ মিনিটে আসে। তাছারা বিকাল ৪.৩৭ মিনিট, ৫.৫৫ মিনিট, সন্ধা ৭.২২ মিনিটে বিদ্যুৎ পালায়। ২ অক্টোবর ভোর পাঁচটার সময় পালায় ও দুপুর ১২টা সময় বিদ্যুৎ পালিয়ে রাত ১.০৭ মিনিটে আসে। হাহাকার পড়েছে বিদ্যুৎ গ্রাহকের। একাধিক সুত্রে জানা যায় যে, রাত দুইটা-তিনটার সময় যায় বিদ্যুৎ দেখা এবং বলার কেউ নেই। সাধারণ মানুষের মনে প্রশ্ন জেগে উঠেছে, আসলে কি বিদ্যুৎসমস্যা না কি সরকারকে বিপদে ফালানোর জন্য বিদ্যুৎ বিতারণ বিভাগ কর্মচারী কারসাজি।