কোরিয়ান মালিকানাধীন হেসং গার্মেন্টস কর্তৃপক্ষ বিল্ডিং সেফটি এর সনদ জাল করে এ্যাকর্ড এ দাখিল করায় এ্যাকর্ড এবং বায়াররা সম্পর্ক ছিন্ন করার পর ৬ হাজার শ্রমিকের মধ্যে নানা ছল চাতুরীর মাধ্যমে ক্ষতিপূরন না দিয়ে আগেই ৪ হাজার শ্রমিককে কারখানা থেকে বিদায় করে। একই কায়দায় ২১৮ জন শ্রমিককে এপ্রিল মাসের ৪ তারিখ থেকে ৬ বার প্রতিশ্রুতি দিয়েও পাওনা পরিশোধ করে নাই, গত ২৮ আগস্ট কিছু কিছু টাকা দিয়েছে মাত্র।
অন্যদিকে বহিরাগত মাস্তান দিয়ে গত ১৬ আগস্ট ফেডারেশনের কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দসহ ১৬ জনকে গুরুতর ভাবে আহত করে। শ্রমিকদের সমস্ত ক্ষতিপূরন পরিশোধ, হামলাকারীদের গ্রেফতার ও বিচার এবং আহতদের চিকিৎসা ও চিকিৎসার ব্যয়ভার বহনের দাবীতে আজ ৮ সেপ্টেম্বর শুক্রবার জাতীয় গার্মেন্টস শ্রমিক ফেডারেশনের উদ্যোগে এক প্রতীক অনশন কর্মসূচী জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে সকাল ১১টায় শুরু হয়। ১ ঘন্টা ব্যপী এ কর্মসূচীতে হেসং কর্পোরেশনের শ্রমিকেরা অংশ নেয়।
ফেডারেশনের সভাপতি জনাব আমিরুল হক্ আমিন এর সভাপতিত্বে এ কর্মসূচীতে বক্তব্য রাখেন ঃ ফেডারেশনের সাধারন সম্পাদক মিস আরিফা আক্তার, কেন্দ্রীয় নেতা মোঃ ফারুক খান, মোঃ রফিকুল ইসলাম রফিক, মোঃ ফরিদুল ইসলাম, ইসরাত জাহান ইলা, মোঃ কাশেম, মিস পারভীন আক্তার ও হেসং কর্পোরেশনের শ্রমিক মোঃ রফিক।
কর্মসূচীতে সংহতি বক্তব্য রাখেন ঃ ইন্ডাষ্ট্রিঅল বাংলাদেশ কাউন্সিল (আইবিসি) এর মহা সচিব জনাব তৌহিদুর রহমান, আইবিসি এর কোষাধ্যক্ষ জনাব সালাউদ্দিন স্বপন, ইউনি গ্লোবাল বাংলাদেশ কমিটি এর সমন্বয়কারী জনাব মোস্তফা কামাল, জাতীয় শ্রমিক ফেডারেশনের দপ্তর সম্পাদক জনাব কামরুল হাসান।
এছাড়াও শ্রমিক কর্মচারী ঐক্য পরিষদ (স্কপ) এর সমন্বয়কারী ডাব্লিউএফটিইউ বাংলাদেশ কমিটির আহবায়ক ডাঃ ওয়াজেদুল ইসলাম খান এবং আইটিইউসি বাংলাদেশ কমিটি, শ্রমিক কর্মচারী ঐক্য পরিষদ (স্কপ) ও আইটিইউসি বাংলাদেশ কমিটির নেতা শাহ মোঃ আবু জাফর তাদের সংহতি জ্ঞাপন করেন।
ক্ষতিপূরন হিসাবে বক্তারা এই ২১৮ জন শ্রমিককে টার্মিনেশন অথবা ছাটাইয়ের সংগা অনুযায়ী নোটিশ-পে, সার্ভিস বেনিফিট, অর্জিত ছুটির টাকা ছাড়াও গত এপ্রিল থেকে এ পর্যন্ত সময়ের বকেয়া মজুরী পরিশোধ এর দাবী উল্লেখ করেন।