আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক, সড়ক পরিবহণ ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, যারা জেল, জুলুমকে ভয় পায় তারা কখনও বড় নেতা হতে পারে না। কেননা জেল-জুলুম রাজনীতিবিদদের চলমান রাজনৈতিক জীবনেরই অবিচ্ছেদ্য অংশ।
তাই কারা জীবনের ভয়ে বছরের পর বছর বিদেশে থেকে যারা শুধু সমালোচনা করে বেড়ান তারা বড় নেতার স্বপ্ন দেখেন কি করে। আজ রবিবার দুপুরে কক্সবাজারের উখিয়ার বালুখালী রোহিঙ্গা শিবির পরিদর্শন ও রোহিঙ্গাদের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণকালে তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি আরো বলেন, বঙ্গবন্ধু এবং স্বাধীনতা নিয়ে কটাক্ষ করে কথা বলা মানে সত্য কথা হতে পারে না। স্যোসাল মিডিয়ার এ যুগে সরকার তারেক জিয়ার বক্তব্য প্রচার বন্ধ করেছে বলে খালেদা জিয়া অপপ্রচার ও মিথ্যাচার করছে। ’

ওবায়দুল কাদের বলেন, বিএনপির হাতে কোন রাজনৈতিক ইস্যু নেই। এ কারণে নতুন করে রোহিঙ্গা ইস্যুকে দলটি রাজনৈতিক হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহারের পাঁয়তারা শুরু করেছে। তিনি নেতা-কর্মীদের এ ব্যাপারে সজাগ থাকতে পরামর্শ দিয়েছেন।

তিনি আরও বলেন, রোহিঙ্গাদের ৬ মাসের মধ্যে ভাসানচরে স্থানান্তর করা হবে। কক্সবাজারের প্রতিবেশ ও পর্যটন শিল্প রক্ষার স্বার্থে রোহিঙ্গাদের স্বদেশে ফিরে না যাওয়া পর্যন্ত তাদের একটি অংশকে ভাষাণচরে রাখা হবে।

সেতুমন্ত্রী বলেন, রোহিঙ্গা সঙ্কট মোকাবেলায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যখন বিশ্বে প্রসংশিত হয়েছেন, তখন সরকারের সমালোচনায় ব্যস্ত বিএনপি। কারণ বিএনপি নির্বাচনে আসতে ভয় পায়। খালেদা জিয়া যতই উত্তরাধিকার বানানোর চেষ্টা করুক না কেন জেল জুলুমের ভয়ে যারা দেশে আসে না তারা কখনও বড় নেতা হতে পারে না। ’

রোহিঙ্গা ইস্যু নিয়ে সারা বিশ্ব বাংলাদেশের পাশে রয়েছে উল্লেখ করে মন্ত্রী আরও বলেন, ‘রোহিঙ্গাদের সম্মানের সঙ্গে পূর্ণনাগরিকতা পাওয়ার ব্যবস্থা করেই মিয়ানমারে ফেরত পাঠানো হবে। ’

এ সময় তাঁর সঙ্গে দলের সাংগঠনিক সম্পাদক এনামুল হক শামীম, মাহফুজুল হায়দার চৌধুরী রোটন, কক্সবাজার জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট সিরাজুল মোস্তফা, সাধারণ সম্পাদক মুজিবুর রহমান চেয়ারম্যান, সংসদ সদস্য সাইমুম সরওয়ার কমল ও আশেক উল্লাহ রফিক, উখিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির চৌধুরীসহ কেন্দ্রীয় ও জেলার নেতারা উপস্থিত ছিলেন।