‘মৃত্যুর অপেক্ষায় ক্ষণ গুনছিলেন জাহাঙ্গীর আলম। কাউকেই নিজের মৃত্যু পূর্ব যন্ত্রনায় ভাগীদার করতে চাননি, এমনকি পরিবারকেও না।’ কাঁদতে কাঁদতে বলছিলেন তার বড় ভাই শাহ আলম। এখানেই সবার চেয়ে আলাদা জাহাঙ্গীর আলম। তাইতো সন্তানদের জন্য রেখে যাওয়া লিখিত উপদেশে ভালো মানুষ হবার আহবান যেমন জানিয়েছেন, তেমনি কোনো প্রতিদানের আশা না করে মানুষের উপকার করার কথাও বলে গেছেন।

বাংলাদেশ স্পোর্টস প্রেস অ্যাসোসিয়েশন (বিএসপিএ) আয়োজিত স্মরণ সভায় তার নানা দিক তুলে ধরেন তার সতীর্থ, সিনিয়র, জুনিয়র ক্রীড়া সাংবাদিক, লেখকরা। ১৩ সেপ্টেম্বর পৃথিবীর মায়া ছেড়ে চলে গিয়েছিলেন জাহাঙ্গীর আলম।

মহানগরী ফুটবল লিগ কমিটি সভাকক্ষে আয়োজিত স্মরণ সভায় সভাপতিত্ব করেন বিএসপিএ সভাপতি মোস্তফা মামুন। বক্তব্য রাখেন সংগঠনের সাবেক তিন সভাপতি রেজাউর রহমান সোহাগ, সারওয়ার হোসেন ও রানা হাসান। এছাড়াও স্মৃতিচারণ করেন শামীম চৌধুরী, রাহেনুল ইসলাম, তারিক আপন, কাজী ইমরুল কবির সুমন, আরিফ সোহেল, সৈয়দ মাজহারুল পারভেজ।

সবাই জাহাঙ্গীর আলমকে মেধাবী ব্যক্তিত্ব হিসেবে আখ্যা দিয়েছেন। সবার বক্তব্যে ফুটে উঠেছে তার ক্রীড়াপ্রেম, সমিতির প্রতি অনুরাগ, সততার কথা।