মোঃ ইউনুস আলী, লালমনিরহাট প্রতিনিধি:

স্ত্রীকে নিযার্তন, হত্যার চেষ্টা ও মিথ্যা মামলা ফাঁসানোর অভিযোগে লালমনিরহাটের সড়ক ও জনপথ বিভাগের উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী সুলতান মাহমুদের বিরুদ্ধে তার স্ত্রী তাহেরা খাতুন সংবাদ সম্মেলন করেন। বুধবার লালমনিরহাট প্রেসক্লাবে এক সাংবাদ সম্মেলনে অনুষ্ঠিত হয়।

তাহেরা খাতুন লালমনিরহাটের হাতীবান্ধা উপজেলার দোলাপাড়া গ্রামের আব্দুল লতিফের মেয়ে। তার স্বামী প্রকৌশলী সুলতার মাহমুদ বর্তমানে পাবনা-২ অঞ্চলে সড়ক ও জনপথ বিভাগে উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী পদে কর্মরত আছেন।

সাংবাদ সম্মেলনে নগর পরিকল্পনাবিদ তাহেরা খাতুন লিখিত অভিযোগে বলেন, গত বছরের ২৬ অক্টোম্বর লালমনিরহাট থানা পাড়া কাজী অফিসে ওই প্রকৌশলী সুলতান মাহমুদের সাথে তাদের বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকে তাকে শারীরিক ও মানসিক ভাবে নির্যাতন আসছিল বলে অভিযোগে উল্লেখ করেন। পাশাপাশি তার স্বামী ও শ্বশুর বাড়ীর লোকজন যৌতুকের দাবী করেন।

এ বিষয়ে আইনী সহায়তা চেয়ে গত ৩ জানুয়ারী রংপুর নারী ও শিশু নির্যাতন আদালতে তিনি একটি মামলা করেন। কিন্তু মামলা দায়েরের পর বেপরোয়া হয়ে উঠে তার স্বামী ওই উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী সুলতান মাহমুদ। একাধিক বার তাকে হত্যার চেষ্টা করা হয়েছে বলেও তিনি জানান। তার পরিবারের সদস্যদের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দায়ের করা হয়েছে। এ ছাড়া মামলা প্রত্যাহারের হুমকিসহ পুরো বিষয়টি ভিন্নখাতে প্রবাহিত করতে একটি কুচক্রি মহলের সহযোগিতায় অপচেষ্টা করা হচ্ছে।

সাংবাদ সম্মেলন ওই এলজিইডি’র নগর পরিকল্পনাবিদ তাহেরা খাতুন আরো অভিযোগ করে বলেন, মামলা পরিচালনার ক্ষেত্রে রংপুর নারী ও শিশু নিযার্তন আদালতের সরকারী আইনজীবি তাকে আইনী সহযোগিতা করছে না। ফলে সরকারের কাছে ন্যায্য বিচারসহ তার স্বামী ওই প্রকৌশলী সুলতান মাহমুদের শাস্তির দাবী করেন সাংবাদিক সম্মেলনে।