স্টাফ রিপোর্টার ॥
ঝিনাইদহের শৈলকুপা থানার আলোচিত সেকেন্ড অফিসার এস,আই ইকবাল হোসেনের বদলীতে জনমনে স্বস্তি ফিরেছে। তার বদলীর খবরে উপজেলার বেশকিছু হাটবাজারে মিষ্টি বিতরণ হয়েছে বলেও জানা গেছে। গতকাল রোববার শৈলকুপা থানা বরাবর তার বদলীর আদেশ আসে। এরপর থেকে তিনি মরিয়া হয়ে উঠেছেন পূণরায় এই থানাতে আকড়ে থাকতে। বদলী আদেশ প্রত্যাহারের জন্য বিভিন্ন মাধ্যম দিয়ে তিনি উর্দ্ধতণ কর্তৃপক্ষের নিকট জোর তদবীর অব্যাহত রেখেছেন বলে জানা গেছে। প্রায় ৩ বছর পূর্বে ইবি থানা থেকে বদলী হয়ে তিনি শৈলকুপা থানায় যোগদান করেন। এর কয়েক মাস যেতে না যেতেই অত্যন্ত সুকৌশলে থানার সেকেন্ড অফিসারের চেয়ার দখল করেন। সেই থেকে মাদক ব্যবসায়ী, জুয়া কারবারীদের সাথে সখ্যতা, থানার গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পাচার, শালিস ব্যবসা, ওয়ারেন্ট আসামী বাণিজ্যসহ নানা বিতর্কিত কর্মকান্ডে নাজেহাল হয়ে পড়ে উপজেলাবাসী। গত বছর আবাইপুর ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা মোক্তার আহমেদ মৃধার উপর সন্ত্রাসী হামলার ভিডিও ফুটেজ মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে পাচারের অভিযোগ উঠে। এ ঘটনায় প্রশাসনকে বিব্রতকর অবস্থায় ফেলে অনেক সমালোচিত হয় এস,আই ইকবাল হোসেন। যে কারনে তার বদলী আদেশ হয়েছিল। তাৎক্ষনিক নানা তদবীর চালিয়ে সে পূণরায় শৈলকুপা থানায় বহাল তবিয়তেই থেকে যায়। গতকাল খুলনা মেট্রোপলিটন পুলিশে তার বদলী আদেশের খবরে আজ দিনভর টাকার থলে নিয়ে দৌড়ঝাপ করছেন। সতেচন মহলের প্রশ্ন একই থানায় দীর্ঘদিন থাকার পরও বদলী আদেশ ঠেকাতে তিনি এত মরিয়া কেন? ব্যঙ্গ করে অনেকেই বলছেন, শৈলকুপায় কি মধু পেলেন থানার সেকেন্ড অফিসার এস,আই ইকবাল হোসেন? এ ব্যাপারে শৈলকুপা থানার অফিসার ইনচার্জ আলমগীর হোসেন জানান, সেকেন্ড অফিসার এস,আই ইকবাল হোসেনের খুলনা মেট্রোপলিটন পুলিশে বদলী আদেশ এসেছে। তবে তার কাছে অনেক মামলা পেনডিং রয়েছে।