আজ ৩অক্টোবর সকাল ১১.৩০টায় সেগুনবাগিচার স্বাধীনতা হলে (ডিআরইউ এর ৩য় তলায়) মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা জাতিসংঘের ৭২তম সাধারণ পরিষদে ‘২৫শে মার্চকে আন্তর্জাতিক গণহত্যা দিবস পালন’ এবং রোহিঙ্গাদের সমস্যার স্থায়ী সমাধানের লক্ষ্যে জাতিসংঘে ৫ দফা প্রস্তাব উত্থাপন এবং তাদের সহায়তায় বিশ্ববাসীকে এগিয়ে আসার আহবাণ জানানোর জন্য তাঁকে ধন্যবাদ জ্ঞাপন এবং তা বাস্তবায়নের দাবিতে শ্রমিক কর্মচারী পেশাজীবী মুক্তিযোদ্ধা সমন্বয় পরিষদ ও আন্তর্জাতিক যুদ্ধাপরাধ গণবিচার আন্দোলন এর পক্ষ থেকে সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়।
সংবাদ সম্মেলনে সংগঠনদ্বয়ের আহবায়ক মাননীয় নৌ-পরিবহন মন্ত্রী বীর মুক্তিযোদ্ধা জনাব শাজাহান খান এম.পি মায়ানমার সরকার কর্তৃক পরিচালিত গণহত্যার নিন্দা জানান এবং অবিলম্বে তা বন্ধ করে রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নেয়ার দাবি জানান।
তিনি বলেন, “আমরা বিপন্ন রোহিঙ্গাদের পাশে আমরা দাঁড়াতে চাই। আমাদের সংগঠনে প্রায় একশত সংগঠন রয়েছে। আমরা টেকনাফে আশ্রিত রোহিঙ্গাদের জন্য শতাধিক ট্রাক ভর্তি ত্রাণ সামগ্রি নিয়ে তাদের পাশে দাঁড়ানোর সিদ্ধান্ত গ্রহন করেছি। আমরা অবিলম্বে এই যাত্রা শুরু করবো।”
সংবাদ সম্মেলন আরোও উপস্থিত ছিলেন শিরীন আকতার এম.পি, জনাব বীর মুক্তিযোদ্ধা ইসমত কাদির গামা, ওসমান আলী, কামরুল আলম সবুজ, রোকেয়া প্রাচী, বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল মালেক মিয়া, মোখলেছুর রহমান, সেলিনা আক্তার, এম.এ কাসেম, মহসীন ভূইয়া, আবুল হোসেনসহ প্রমূখ নেতৃবৃন্দ।