কুতুপালং (কক্সবাজার), ১৮ আশ্বিন (৩ অক্টোবর) :

দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণমন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া, বীরবিক্রম বলেছেন, মিয়ানমার থেকে পালিয়ে আসা সকল রোহিঙ্গাকে সাময়িকভাবে কুতুপালং ক্যাম্পে রাখা হবে। এ উদ্দেশ্যে ক্যাম্পের পরিধি বাড়ানো হচ্ছে।

মন্ত্রী আজ কুতুপালং রোহিঙ্গা ক্যাম্পে বান্দরবান থেকে ফিরিয়ে আনা রোহিঙ্গাদের মধ্যে ত্রাণ বিতরণ ও শেড হস্তান্তর পরবর্তী ব্রিফিংয়ে এ কথা বলেন। দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ সচিব মোঃ শাহ্ কামাল, কক্সবাজারের শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনার মোহাম্মদ আবুল কালাম, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদপ্তরের পরিচালক সৈয়দ এমএ হাসেম ও বান্দরবানের জেলা প্রশাসক এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

মন্ত্রী বলেন, বান্দরবান, কক্সবাজার, রাঙ্গামাটি ও খাগড়াছড়িসহ বিভিন্ন জায়গায় যারা রয়েছে তাদেরকে কুতুপালং ক্যাম্পে আনা হয়েছে। শুধু বান্দরবানে ১৭ হাজার রোহিঙ্গা পালিয়ে গিয়ে আশ্রয় নেয়। প্রাপ্ত তথ্যমতে ২৫টি জায়গায় রোহিঙ্গারা ছড়িয়ে ছিটিয়ে রয়েছে। তাদের সকলকে কুতুপালং মূল ক্যাম্পে আনা হচ্ছে। তিনি আরো বলেন, রোহিঙ্গাদের নিরাপত্তা, খাদ্য সরবরাহ, চিকিৎসা এবং রেজিস্ট্রেশন সুবিধার জন্য একই ক্যাম্পে রাখা হবে। তিনি আরো বলেন, বিভিন্ন বাসাবাড়ি বা পরিচিতজনের কাছে গিয়ে কিছু রোহিঙ্গা আশ্রয় নিয়েছে মর্মে তথ্য রয়েছে। তাদের সকলকে খুঁজে বের করার জন্য আইনশৃঙ্খলা বাহিনী কাজ করছে। না জেনে বুঝে অবৈধভাবে যারা রোহিঙ্গাদের নিজ বাড়িতে আশ্রয় দিয়েছেন তাদের বিরুদ্ধে হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেছেন মন্ত্রী। রোহিঙ্গারা যাতে ক্যাম্পের বাইরে গিয়ে স্থানীয় পরিবেশ ও আইনশৃঙ্খলার বিঘœ ঘটাতে না পারে তার জন্য সামাজিকভাবে সকলকে সচেতন হওয়ার আহ্বান জানান তিনি।

মন্ত্রী পরে ক্যাম্পের বিভিন্ন পরিসেবার উন্নয়ন কাজ পরিদর্শন করেন।