বুধবার রাখাইনের রাজধানী সিতেতে পৌঁছান তিনি। এরপর রাখাইনের উত্তরাঞ্চলে যেই গ্রামগুলোতে সহিংসতা হয়েছে সেখানে যান তিনি। এর আগে ২০১৫ সালে নির্বাচনী প্রচারণার সময় রাখাইনের দক্ষিণাঞ্চলে গিয়েছিলেন তিনি।

রাখাইন সরকারের উপপরিচালক তিত মং সুই জানান, ‘রাষ্ট্রীয় উপদেষ্টা রাখাইন এসেছেন। তিনি প্রদেশের কর্মকর্তাদের নিয়ে রাখাইনের মংডুতে যাচ্ছেন।’

গত ২৫ আগস্ট রাখাইন রাজ্যে সহিংসতার পর রোহিঙ্গাদের ওপর নিধনযজ্ঞ শুরু করে মিয়ানমারের সেনাবাহিনী। হত্যা ও ধর্ষণ থেকে বাঁচতে বাংলাদেশে পালিয়ে আসে ছয় লাখেরও বেশি রোহিঙ্গা। তাদের কাছে শোনা যায় সেনাবাহিনী হত্যাযজ্ঞ ও বর্বরতার কথা। এরপর মিয়ানমার ও সু চি আন্তর্জাতিক চাপের মুখে পড়ে। এরপর প্রথমবারের মতো রাখাইন আসলেন সু চি।

সরকারের একজন মুখপাত্র বলেছেন, সু চি তার একদিনের সফরে রাখাইনের দুটি শহর পরিদর্শন করবেন। বার্তা সংস্থা এএফপিকে তিনি জানান, সু চি বর্তমানে রাখাইনের সিতেতে অবস্থান করছেন।

এরপর তিনি মংডু এবং বুথিডং এলাকা সফর করবেন। এ দুটো এলাকায় সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে এবং সেখান থেকে হাজার-হাজার রোহিঙ্গা মুসলমান প্রাণ বাঁচাতে বাংলাদেশে পালিয়ে গেছে। সু চি’র সফর সম্পর্কে বিস্তারিত কিছু জানাতে চায়নি তার দফতর।