ঈদ উদযাপনে ঘরে ফেরার শেষ পর্যায়ে গতকাল ছিল সপ্তাহের শেষ কার্যদিবস। অফিস ছুটির পর ঘরমুখো মানুষের ভিড়ও বাড়তে থাকে বাস স্টেশন, রেল স্টেশন ও লঞ্চ টার্মিনালে। গতকাল মহাসড়কে যানজট না থাকলেও যানবাহন চলেছে ধীর গতিতে। তবে সীমাহীন দুর্ভোগ পোহাতে হয়েছে দেশের দক্ষিণাঞ্চলের মানুষের। ফেরি চলাচল ব্যাহত হওয়ায় মুন্সীগঞ্জের শিমুলিয়া ও মানিকগঞ্জের পাটুরিয়া ফেরিঘাটে অপেক্ষা করতে হয়েছে ঘণ্টার পর ঘণ্টা। অন্যদিকে রাজধানীর কমলাপুর রেল স্টেশনে অনেকে ঝুঁকি নিয়ে ছাদে উঠে রওনা দিতে দেখা গেছে। তা সত্ত্বেও যাত্রীদের মধ্যে ছিল স্বস্তি। যাত্রী ওঠা-নামা ও বিলম্বে আসার কারণে চারটি ট্রেন স্টেশন থেকে দেরিতে ছেড়ে গেছে।

মানিগঞ্জের পুলিশ সুপার মাহফুজুর রহমান বলেন, সড়কে কোন যানজট ছিল না। তবে পাটুরিয়া ঘাটে যানবাহন পারপারে অনেকটা দেরি হয়েছে। এরফলে মানুষকে কিছুটা ভোগান্তিতে পড়তে হয়। তিনি বলেন, আগে পাটুরিয়া থেকে ফেরি দৌলতদিয়ায় পৌঁছাতে ৪০ মিনিট সময় লাগতো, এখন ২ থেকে আড়াই ঘণ্টা লাগে। অপর দিকে দৌলতদিয়া থেকে পাটুরিয়া ঘাটে পৌঁছাতে ফেরিতে সময় লাগতো ২০ মিনিট, এখন এক থেকে দেড় ঘণ্টা সময় লাগে। ঘুষ দিয়ে সিরিয়াল ছাড়াই ফেরিতে গাড়ি উঠার অভিযোগ একেবারে মিথ্যে নয়। শুনেছি ঘুষের কারবার চলে বিকাশের মাধ্যমে। তবে আমরা বিষয়টি কঠোর মনিটরিং করছি।

অপর দিকে মুন্সীগঞ্জের শিমুলিয়া থেকে বিআইডব্লিউটিসির সহকারী মহাব্যবস্থাপক খন্দকার শাহ নেওয়াজ খালেদ বলেন, গতকাল সকাল থেকেই ঘরমুখো মানুষের চাপ বাড়তে থাকে। সকাল থেকে ১৯টি ফেরি চলাচল করলেও স্রোত ও বাতাসে সময় বেশি লাগায় পারাপার ব্যাহত হচ্ছিল।

জেলার অতিরিক্ত         পুলিশ সুপার সাইফুল ইসলাম জানান, মঙ্গলবার রাত ১২টা থেকে ট্রাক পারাপার বন্ধ করা হয়েছে। ঈদের আগে ও পরের তিনদিন পণ্যবাহী ট্রাক পারাপার বন্ধ থাকবে।

বিমানবন্দর রেলস্টেশনের শেড হেলে পড়েছে

বিমানবন্দর  রেলস্টেশনে যাত্রীরা ট্রেনে উঠার জন্য স্টেশনের প্লাস্টিক টিনের শেডের ওপর চড়ে। বিকাল থেকে অনেক যাত্রী শেড থেকে লাফ দিয়ে ট্রেনের ছাদে ওঠে। বৃহস্পতিবার রাত ৮ টা ২০ মিনিটের দিকে ঢাকা-পার্বতীপুর বিশেষ ট্রেনটি ঢাকায় আসছিল। এই ট্রেনের ছাদে আগে থেকেই জায়গা করে নিতে স্টেশনের ছাদ থেকে যাত্রীরা লাফিয়ে পড়েন। ছাদে তিল ধরণের ঠাঁই না থাকায় যাত্রীদের মধ্যে হুড়োহুড়ি শুরু হয়। এক পর্যায়ে ষ্টেশনের শেড প্রায় ৩/৪ ফুট নীচে হেলে পড়ে। এক পর্যায়ে শেড থেকে অর্ধশত যাত্রী নিচে পড়ে যায়। এতে ৮ জন আহত হয়।

ভিড়েও ট্রেনে স্বস্তি

সপ্তাহের শেষ কার্যদিবস ছিল গতকাল বৃহস্পতিবার। গতকাল সকাল থেকেই কমলাপুর রেল স্টেশনে ঘরমুখো মানুষের উপচেপড়া ভিড় ছিল। ধাক্কাধাক্কি-হুড়োহুড়ি করে যাত্রীদের উঠতে হচ্ছে ট্রেনে। যাত্রীরা জানান, সড়কপথের ভোগান্তির চেয়ে এখানে ভোগান্তি কম।

স্টেশন ম্যানেজার সিতাংশু চক্রবর্তী বলেন, কমলাপুর থেকে গতকাল ৬৭টি ট্রেন বিভিন্ন গন্তব্যে ছেড়ে গেছে। এর মধ্য ৩০টি আন্তঃনগর এবং তিনটি ঈদের বিশেষ ট্রেন। তবে চিলাহাটিগামী নীলসাগর ট্রেনটি সোয়া দুই ঘণ্টা, রংপুর এক্সপ্রেস এক ঘণ্টা, ধূমকেতু এক্সপ্রেস দুই ঘণ্টা ও সুন্দরবন এক্সপ্রেস এক ঘণ্টা ২০ মিনিট দেরিতে ছেড়েছে।

যানজটমুক্ত ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক

ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের কুমিল্লা ও মুন্সীগঞ্জের গজারিয়া অংশে গতকাল যানজট ছিল না। দাউদকান্দি হাইওয়ে থানার ওসি আবুল কালাম আজাদ বলেন, বুধবার মধ্যরাত থেকে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে ভারী যানবাহন চলাচল বন্ধ রয়েছে। গত তিন দিন দাউদকান্দি টোল প্লাজাকেন্দ্রিক কিছু যানজট ছিল। তবে কাঁচপুর-মদনপুর-গজারিয়া এলাকায় মেঘনা সেতু কেন্দ্রিক যানজট ছিল তুলনামূলক বেশি। গতকাল সেতু এলাকায় যানযাবহন চলেছে ধীর গতিতে।

গাবতলী বাস টার্মিনালে শেষ বেলায় মিলেছে টিকেট

দূরপাল্লার বাস কাউন্টারগুলোতে শেষ মুহূর্তে টিকেট পেতে কোনো ঝক্কি পোহাতে হয়নি যাত্রীদের। উল্টো অনেক কাউন্টারের কর্মীদের যাত্রী পেতে ডাকাডাকি করতে দেখা গেছে। তবে বাড়তি ভাড়া আদায়ের অভিযোগে গাবতলীতে দুটি পরিবহনকে জরিমানা করেছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। পুলিশ জানায়, ভ্রাম্যমাণ আদালত গাবতলী বাস টার্মিনালে দুটি পরিবহন কাউন্টারে ১৪ হাজার টাকা জরিমানা করে। গাড়ি রুট পারমিট ও অন্য কাগজ না থাকায় হানিফ পরিবহনকে ১২ হাজার ও বাড়তি ভাড়া আদায় করায় সুমন ডিলাক্সকে ২ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।

ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কে যানজট নেই

গতকাল ঢাকা-টাঙ্গাইল ও ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কে যানবাহনের চাপ বাড়লেও কোথাও যানজটের খবর পাওয়া যায়নি। তবে গাড়ি সংকট ছিল।  আর গাড়ি কম ও ভাড়া বেশি হওয়ায় অনেককে বাসের ছাদে চড়ে গন্তব্যে যেতে দেখা গেছে। চন্দ্রায় দায়িত্বরত গাজীপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. গোলাম সবুর বলেন, গাড়ির সংখ্যা কম থাকায় যাত্রীদের গাড়ির জন্য অপেক্ষা করতে হয়েছে। মাওনা হাইওয়ে থানার ওসি দেলোয়ার হোসেন বলেন, বৃষ্টির কারণে শ্রীপুরে গাড়ি ধীরে ধীরে চলায় লম্বা লাইন সৃষ্টি হলেও যানজট হয়নি। নাওজোর হাইওয়ে থানার ওসি আব্দুল হাই বলেন, চান্দনা-চৌরাস্তা এলাকায় যাত্রী ওঠাতে গিয়ে মাঝে মাঝে গাড়ির চাপ ছিল।

সদরঘাটে ভিড়

গতকাল সকালে রাজধানীর সদরঘাট লঞ্চ টার্মিনালে যাত্রীদের উপচেপড়া ভিড় ছিল না। তবে বিকালে যাত্রীদের চাপ সামাল দিতে গিয়ে হিমশিম খেতে হচ্ছে কর্তৃপক্ষকে। পন্টুনে স্থান নেই বলে বারবার মাইকে ঘোষণা দেওয়া হলেও তাতে কেউ কান না দেওয়ায় বিকাল ৫টার দিকে পন্টুনে প্রবেশের গেইট বন্ধ করে দেওয়া হয়। গতকাল বিকাল সাড়ে ৪টার দিকে সদরঘাট পরিদর্শনে যান পুলিশের মহাপরিদর্শক এ কে এম শহীদুল হক।