মোঃ ইউনুস আলী, লালমনিরহাট প্রতিনিধি:

বিরল রোগে আক্রান্ত হয়েছে ৬ মাসের এক শিশু। অর্থাভাবে চিকিৎসা করতে না পারায় তাত ভাগ্য আজ নিয়তির হাতে। চিকিৎসা করতে প্রয়োজন ৪ লক্ষ টাকা। হতদরিদ্র বাবার পক্ষে যা জোগার করা অসম্ভব। একমাত্র আপনার আমার সাহায্য সহযোগীতাই পারে ঐ শিশুর জীবন বাঁচাতে।

বিরল রোগে আক্রান্ত ঐ কন্যা শিশু লালমনিরহাটের হাতীবান্ধা উপজেলার উত্তর গোতামারী গ্রামের কারখানার শ্রমিক আতাউর রহমানের মেয়ে রাদিয়াতুল জান্নাত।

সোমবার সকালে সড়েজমিনে গিয়ে দেখা যায় চিকিৎসার অভাবে নিস্পাপ ওই শিশুটির অবস্থা যত দিন যাচ্ছে অবনতি হচ্ছে। তার পিঠে মেরুদন্ডের উপড়ে টিউমার আকৃতির ক্ষত ও মাথা ফুলে যাচ্ছে।

শিশুটির মা আবদানা বেগম জানান, তার স্বামী ঢাকায় এক কারখানার শ্রমিকের কাজ করেন। হাতের জমাকৃত অর্থ চিকিৎসা করতে ইতোমধ্যে শেষ হয়ে গেছে। শিশুটি বিরল রোগ থেকে রক্ষা পাওয়ার বিষয়টি তাই এখন ছেড়ে দিয়েছেন নিয়তির কাছে। কন্যা শিশুর চিকিৎসার জন্য সরকারের উচ্চ মহলসহ দেশে বিত্তবানদের নিকট মানবিক সাহায্যের আবেদন জানান তার মা আবদানা বেগম।

শিশুটির বাবা আতাউর রহমান জানান, জন্মের পর জান্নাতের পিঠে একটু ক্ষতের দাগ দেখা যায়। প্রথমে চিকিৎসার জন্য হাতীবান্ধা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেয়া হয়। এখানে প্রাথমিক চিকিৎসা নেয়ার পর সুস্থ্য না হওয়ায় রংপুর কমিউনিটি মেডিকেল কলেজ হাসপাতলে নিউরো সার্জারী বিভাগের ডাঃ তোফায়েল হোসেন ভুইঞার কাছে নেয়া হয়।

সেখানে পরীক্ষা নিরিক্ষা শেষে জানা যায়, শিশুটি ম্যানিগোসেল রোগে আক্রান্ত হয়েছে। ইহা মেরুদন্ডের মাঝে একটি ক্ষতের মতো মেরুদন্ডটি দু’ভাগে বিভক্ত।
পরে তাকে ঢাকা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য নেয়া হলে সেখানেও একই রোগের কথা বলেছেন চিকিৎসকরা। রোগের লক্ষণ দেখে চিকিৎসক যত দ্রুত সম্ভব অপারেশন করার জন্য পরামর্শ দেন।

রংপুর কমিউনিটি মেডিকেল কলেজ হাসপাতলে নিউরো সার্জারী বিভাগের ডাঃ তোফায়েল হোসেন ভুইঞা জানান, অপারেশনের মাধ্যমে শিশু রাদিয়াতুল জান্নাতকে সুস্থ করে তোলা সম্ভব। কিন্তু এই অপারেশন করতে অন্তত  ৪ লাখ টাকার প্রয়োজন।