ঝালকাঠি প্রতিনিধিঃ- ঝালকাঠি পল্লী বিদ্যুতের অবহেলায় মাদ্রাসা ছাত্রের মর্মমান্তিক মৃত্যু হয়েছে বলে অভিযোগ করেন নিহত এনামুলের স্বজনরা। এনামুল ঝালকাঠি শহরের বাসস্ট্যান্ড সংলগ্ন কুতুবনগর মাদ্রাসার ৯ম শ্রেণির ছাত্র ও লেশপ্রতাপ গ্রামের আব্দুল মোতালেব খানের পুত্র। স্থানীয় আব্দুল ওয়াহাব জানান, কয়েকদিন পূর্বে বাড়ির সামনের বৈদ্যুতিক খুটিতে টানা দেয়া তার ছিড়ে যায়। সমস্যা সমাধানের জন্য বৈদ্যুতিক বিলের কপিতে দেয়া মোবাইলে অসংখ্যবার কল দিলেও তা কেউ রিসিভ করেনি। মঙ্গলবার দুপুর সাড়ে ১১ টার দিকে তা সরিয়ে রাখতে যায় মাদ্রাসা ছাত্র এনামুল। মুহুর্তেই বিদ্যুৎ স্পৃষ্ঠ হলে এনামুলের মা-বাবা দুজনেই টেনে ছাড়িয়ে আনতে যায় তার সন্তানকে। ঘটনা দেখে দৌড়ে গিয়ে লাথি মেরে তাদেরকে সরিয়ে বাঁশ দিয়ে পিটিয়ে এনামুলকে ছাড়ানো হয়। ইতিমধ্যে এনামুলের ঘাড় ও শরীরের এক পাশ পুড়ে যায়। গুরুতর আহতাবস্থায় উদ্ধার করে সদর হাসপাতালে নিয়ে আসলে কর্তব্যরত চিকিৎসক এনামুলকে মৃত ঘোষণা করেন। কুতুবনগর মাদ্রাসার অধ্যক্ষ মাওলানা মুহাম্মদ আব্দুল মান্নান জানান, সোমবার এনামুল মাদ্রাসায় এসে ক্লাস করেছে। ছাত্র হিসেবে যেমন ভালো ছিলো, তেমন আদব-আখলাক এবং আমলেও ভালো ছিলো। ভাবতে অবাক লাগে যে ছাত্রটিকে সোমবার পাঠদান করিয়েছি সেই ছাত্রটিকেই মঙ্গলবার মাটি দিতে হয়েছে। এদুর্ঘটনা শুধুমাত্র বিদ্যুৎ বিভাগের অবহেলার কারনেই হয়েছে। ঝালকাঠি পল্লী বিদ্যুৎ এর জেনারেল ম্যানেজার মোঃ এমদাদুল হক জানান, যখনই আমরা সমস্যার কথা শুনেছি তখনই লাইনের সমস্যা সমাধান করা হয়েছে। ইতিমধ্যে একটি দুর্ঘটনাও ঘটে গেছে।