মেহেদী হাসান উজ্জল ফুলবাড়ী (দিনাজপুর) প্রতিনিধি:
দিনাজপুরের ফুলবাড়ীতে বড় ভাইয়ের মোবাইল কেনা কে কেন্দ্র করে ছোট ভাইয়ের আত্ব্যহত্যার ঘটনা ঘটেছে।
পরিবার সুত্রে জানা গেছে ,পৌর এলাকার উত্তর সুজাপুর প্রফেসর পাড়া গ্রামের আফতাফ গঞ্জ ডিগ্রি কলেজের প্রভাষক আমজাদ হোসেন তার বড় ছেলে নাজিউর রহমান (১৮) কে গত ১৬ ফেব্রয়ারী শুক্রবার একটি মোবাইল কিনে দেন। এতে তার ছোট ছেলে বীরমুক্তি যোদ্ধা মোস্তাফিজার রহমান ইনিষ্টিটিউট এর ৬ষ্ঠ শ্রেনীর ছাত্র নাফিউল ইসলাম তাতন (১৬) অভিমান করে অত্বহত্যা করে।

প্রভাষক আমজাদ হোসেন ও তার সহর্ধমীনী নুশরাত জাকিয়া বলেন তাদের বড় ছেলে নাজিউর রহমান কে তার বাবা মোবাইল কিনে দিলে ছোট ছেলে নাফিউল ইসলাম তাতন ঐ দিন অভিমান করে। এতে তারা তাকে বুঝিয়ে রাখে।এর পর নাফিউল এর বাবা পার্বতীপুর উপজেলার সুখদেবপুর গ্রামের বাড়ীতে চলে গেলে। তার মা চিকিৎসার জন্য ফুলবাড়ী বাজারে ডাক্তারের কাছে আসেন। তখন তার দুই ছেলে বাড়ীতে পড়াশুনা করছিল। এর পর সন্ধায় বাড়ী ফিরে তার ছোট ছেলে নাফিউল কে তাদের ঘরের দরজায় উড়না পেচানো অবস্থায় দেখতে পায়। তাৎখনিক তাকে নাফিউলের মা নুশরাত জাকিয়া ও তার বড় ছেলে নাজিউর রহমান রহমান ফুলবাড়ী হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষনা করে।
এদিকে নাফিউলের বড় ভাই নাজিউর রহমান বলেন তার বাবা গ্রামের বাড়ীতে তার দাদার অসুস্থতার কথা শুনে দেখতে যান এবং তার মা ডাক্তারের কাছে গেলে। তারা দুই ভাই দুই রুমে পড়াশুনা করছিল। তার মা ডাক্তারের কাছ থেকে বাড়ী ফিরে দরজায় কড়া নাড়লে দরজা খুলতে গিয়ে দেখতে পায় তার ছোট ভাই নাফিউল কে পাশের ঘরের দরজার সাথে ঝুলন্ত অবস্থায় দেখতে পেয়ে তার মা সহ তারা তাকে হাসপাতালে নিয়ে যায়।
ফুলবাড়ী থানার অফিসার্স ইনচার্জ শেখ হাবীব জানান বিষয়টি তদন্ত করে দেখা গেছে এটি একটি আত্বহত্যার ঘটনা। এ ঘটনায় একটি (ইউডি) মামলা করা হয়েছে পরিবারের পক্ষ্য থেকেও কোনো অভিযোগ নেই।