প্রতারণা ও জালিয়াতির অভিযোগে এহসান গ্রæপের চেয়ারম্যান রাগীব আহসান ও তার সহযোগীকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব। সাম্প্রতিক সময়ে এমএলএম কোম্পানীর নামে বিপুল পরিমাণ অর্থ হাতিয়ে নেওয়ার ঘটনায় ভুক্তভোগীদের ঢাকা, নারায়ণগঞ্জ, সিলেট, পিরোজপুরসহ বেশ কয়েকটি জেলায় মানববন্ধন, সংবাদ সম্মেলন ও বিক্ষোভ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। দেশের বিভিন্ন গণমাধ্যমেও বর্ণিত প্রতারণার ঘটনা প্রচারে দেশব্যাপী চাঞ্চল্য ও আলোড়নের সৃষ্টি হয়। বেশ কয়েকজন ভুক্তভোগীও আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর নিকট অভিযোগ দায়ের করেন। ফলশ্রæতিতে র‌্যাব ছায়া তদন্ত শুরু করে ও গোয়েন্দা নজরদারী বৃদ্ধি করে।এরই ধারাবাহিকতায় গত ০৯ সেপ্টেম্বর ২০২১ তারিখ রাতে র‌্যাব সদর দপ্তরের গোয়েন্দা শাখা ও র‌্যাব-১০ এর একটি আভিযানিক দল রাজধানী ঢাকার শাহাবাগ থানাধীন তোপখানা রোড এলাকায় একটি অভিযান পরিচালনা করে রাগীব আহসান (৪১), পিতা-আব্দুর রব, থানা ও জেলা-পিরোজপুর ও তার সহযোগী মোঃ আবুল বাশার খান, পিতা-আব্দুর রব, থানা ও জেলা-পিরোজপুরকে গ্রেফতার করে। এসময় তাদের নিকট থেকে উদ্ধার করা হয় ভাউচার বই ও মোবাইল ফোন ইত্যাদ প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেফতারকৃত রাগীব আহসান তার প্রতারণার মাধ্যমে অর্থ হাতিয়ে নেওয়ার বিষয়ে বিভিন্ন তথ্য প্রদান করেন। জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায়, গ্রেফতারকৃত রাগীব আহসান ১৯৮৬ সালে পিরোজপুরের একটি মাদ্রাসায় অধ্যায়ণ শুরু করেন। পরবর্তীতে সে ১৯৯৬-১৯৯৯ পর্যন্ত হাটহাজারীর একটি মাদ্রাসা হতে দাওরায়ে হাদিস এবং ১৯৯৯-২০০০ পর্যন্ত খুলনার একটি মাদ্রাসা হতে মুফতি সম্পন্ন করেন। অতঃপর সে পিরোজপুরে একটি মাদ্রাসায় চাকুরী শুরু করেন। ২০০৬-২০০৭ সালে তিনি ইমামতির পাশাপাশি “এহসান এস মাল্টিপারপাস” নামে একটি এমএলএম কোম্পানীতে ৯০০ টাকা বেতনের চাকরি করেন। গ্রেফতারকৃতদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের কার্যক্রম প্রক্রিয়াধীন।