ঢাকা, ১২ ডিসেম্বর ২০১৭ খ্রি.
জনগণের দোরগোড়ায় সেবা পৌঁছানোর লক্ষ্যে চালু হল জাতীয় জরুরি সেবা ৯৯৯। প্রধানমন্ত্রীর আইসিটি বিষয়ক উপদেষ্টা জনাব সজীব ওয়াজেদ আজ মঙ্গলবার সকালে রাজধানীর আব্দুল গণি রোডে বাংলাদেশ পুলিশের সেন্ট্রাল কমান্ড এন্ড কন্ট্রোল সেন্টারে ৯৯৯ কার্যক্রম উদ্বোধন করেন।
জনাব সজীব ওয়াজেদ বলেন, বর্তমান সরকারের সময়ে বিভিন্ন ক্ষেত্রে দেশের প্রভূত উন্নয়ন সাধিত হয়েছে। তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তিতেও বাংলাদেশ অনেক এগিয়েছে। জাতীয় জরুরি সেবা ৯৯৯ কার্যক্রম তথ্য প্রযুক্তি খাতে আরেকটি মাইল ফলক হিসেবে বিবেচিত হবে। তিনি বলেন, ৯৯৯ নম্বরটি শুধুমাত্র জরুরি সেবা প্রদানের জন্য। তথ্য জানার জন্য আরেকটি নম্বর অচিরেই চালু করা হবে। তিনি জরুরি প্রয়োজনে পুলিশ, ফায়ার সার্ভিস অথবা এ্যাম্বুলেন্স সেবা পেতে ৯৯৯ নম্বরে কল করার জন্য জনগণের প্রতি আহ্বান জানান। তিনি বলেন, আজ ১২ ডিসেম্বর জাতীয় তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি দিবসে ৯৯৯ দেশের ১৬ কোটি মানুষের জন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর উপহার। তিনি জঙ্গি অপারেশনে বাংলাদেশ পুলিশের সাফল্যের ভূয়সী প্রশংসা করেন। যুক্তরাষ্ট্রের উদাহরণ দিয়ে আইসিটি উপদেষ্টা বলেন, কোন ব্যক্তি বাসায় না থাকলেও তার বাসায় আগুন লাগলে তথ্য প্রযুক্তির মাধ্যমে স্বয়ংক্রিয়ভাবেই অগ্নি নির্বাপনের ব্যবস্থা চালু হয়েছে। তিনি বাংলাদেশকেও তথ্য প্রযুক্তির ওই অবস্থানে নিয়ে যাওয়ার পরিকল্পনার কথা উল্লেখ করেন। এ সময় বাংলাদেশ পুলিশের ইন্সপেক্টর জেনারেল জনাব এ কে এম শহীদুল হক বিপিএম, পিপিএম স্বাগত বক্তব্য রাখেন।
স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন এমপি, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের প্রতিমন্ত্রী জনাব জুনাইদ আহ্মেদ পলক এমপি, যুব ও ক্রীড়া উপমন্ত্রী আরিফ খান জয়, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগের সচিব জনাব মোস্তাফা কামাল উদ্দীন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।
পরে এ উপলক্ষে ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী জনাব আসাদুজ্জামান খাঁন এমপি। বিশেষ অতিথি ছিলেন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগের সচিব জনাব মোস্তাফা কামাল উদ্দীন এবং সম্মানিত অতিথি ছিলেন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য জনাব ফখরুল ইসলাম এমপি ও কামরুন নাহার এমপি। আইজিপি জনাব এ কে এম শহীদুল হক বিপিএম, পিপিএম অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন।
স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ আজ উন্নয়নের মহাসড়কে যুক্ত হয়েছে। আমরা জাতিসংঘের সহ¯্রাব্দ উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা (এমডিজি) অর্জন করেছি। এখন টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা (এসডিসি) অর্জনে কাজ করছি। তথ্য প্রযুক্তিতেও দেশ এগিয়েছে। ডিজিটাল বাংলাদেশ গঠনে জাতীয় জরুরি সেবা ৯৯৯ চালু করা একটি যুগান্তকারী পদক্ষেপ। তিনি বলেন, জরুরি প্রয়োজনে পুলিশ, ফায়ার সার্ভিস ও এ্যাম্বুলেন্স সেবা প্রদানের জন্য আমরা প্রস্তুত।
জনাব মোস্তাফ কামাল উদ্দীন বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ঘোষিত ‘রূপকল্প-২০২১’ ও রূপকল্প-২০৪১’ এর ফসল জাতীয় জরুরি সেবা ৯৯৯। ডিজিটাল বাংলাদেশের ফলেই দেশে ই-কমার্স, ই-ফাইলিং ইত্যাদি চালু হয়েছে।
আইজিপি এ কে এম শহীদুল হক বিপিএম, পিপিএম বলেন, পৃথিবীর অন্যান্য উন্নত দেশের ন্যায় একটি নম্বর থেকে জনগণকে জরুরি সেবা প্রদানের জন্য গত বছরের জুলাই মাসে আমরা পরিকল্পনা গ্রহণ করি। এরই ফলশ্রুতিতে চালু হল জাতীয় জরুরি সেবা ৯৯৯। প্রাথমিক পর্যয়ে ৯৯৯ থেকে জনগণ পুলিশ, ফায়ার সার্ভিস ও এ্যাম্বুলেন্স সেবা পাবে। পর্যায়ক্রমে এ সেবার পরিধি আরো বাড়ানো হবে। ৯৯৯ এ একই সময়ে ১২০টি কল গ্রহণ করা যাবে।
অনুষ্ঠানে আমন্ত্রিত অতিথিগণ এবং ঊর্ধ্বতন পুলিশ কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।