হাসান আলী প্রধান,পীরগঞ্জ (রংপুর) প্রতিনিধিঃ রংপুরের পীরগঞ্জে ৩ কোটি টাকা মূল্যের কষ্টিপাথরের বিষ্ণুমূর্তি উদ্ধার করা হয়েছে। গত সোমবার রাতে ভেন্ডাবাড়ী পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের পুলিশ ছদ্মবেশে ক্রেতা সেজে উপজেলার পান্থাপুকুর গ্রামের লেবু মিয়ার বাড়ি থেকে প্রায় সোয়া ৪ কেজি ওজনের কষ্টিপাথরের ওই বিষ্ণুমূর্তি উদ্ধার করে। এ সময় ১টি মোটরসাইকেলসহ ৩ চোরাকারবারী ও প্রতারক চক্রের সদস্যকে আটক করা হয়। আটককৃতরা হলো- মিঠাপুকুর উপজেলার রামনাথপুর গ্রামের আবু সিদ্দিকের পুত্র শাহীন আলম (৩০), একই উপজেলার মাহিয়ারপুর গ্রামের মৃত আব্দুল লতিফ মিয়ার পুত্র আনছার আলী (৩৮) ও আফজাল হোসেনের পুত্র আখতারুজ্জামান (৩৭)। পুলিশ জানায়- ধৃত চোরাকারবারী ও প্রতারক চক্রটি দীর্ঘদিন যাবৎ দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে ওই বিষ্ণুমূর্তি বিক্রির প্রলোভন দেখিয়ে কিনতে আসা ক্রেতাদের মূর্তি তো দিতই না বরং কৌশলে সর্বস্ব কেড়ে নিত। ইতিপূর্বে বিষ্ণুমূর্তি কিনতে আসা নওগাঁর জনৈক ব্যক্তির ৭২ লক্ষ টাকা, বাংলাহিলির জনৈক ব্যক্তির কাছে ৭২ হাজার টাকা হাতিয়ে নেয় ওই চক্রটি। বিষয়টি জেনে ভেন্ডাবাড়ী পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ ইন্সপেক্টর সুশান্ত সরকার মূর্তি উদ্ধারের লক্ষ্যে সোর্স নিয়োগ করেন। সোর্সের দেয়া তথ্যানুযায়ী পুলিশের দু’সদস্য ক্রেতা সেজে ৩ কোটি টাকা রফাদফায় মূর্তিটি কেনার আগ্রহ প্রকাশ করে। পুলিশ সদস্যরা (ক্রেতা) কাপড় ও কাগজ ভর্তি ব্যাগে সামান্য কিছু টাকা উপরে বিছিয়ে চোরাকারবারী ও প্রতারক চক্রের সদস্যদের বোকা বানায়। এদিকে ক্রেতাদের কাছে ব্যাগ ভর্তি টাকা নিশ্চিত হয়ে ধুরন্ধর চক্রটি সোমবার দুপুর থেকে পড়ন্ত বেলা পর্যন্ত বিষ্ণুমূর্তি বেচা-কেনার স্থান বারবার পরিবর্তন করতে থাকে। এক পর্যায়ে মূর্তি নিয়ে চক্রের ৪ সদস্য দু’ভাগে বিভক্ত হয়ে (২জন অটোরিক্সায় ও ২জন মোটর সাইকেলযোগে) দুর সম্পর্কের আতœীয়ের সূত্র ধরে পান্থাপুকুর গ্রামের লেবু মিয়ার বাড়িতে আসে। ক্রেতাবেসে পুলিশের দু’সদস্যও ওই বাড়িতে যায় এবং লেনদেনের প্রাক্কালে পূর্ব সংবাদের ভিত্তিতে ইন্সপেক্টর সুশান্ত সরকার, এসআই নারায়ণ চন্দ্র, এএসআই তাজ উদ্দিনসহ সঙ্গীয় ফোর্স অভিযান চালিয়ে কষ্টিপাথরের ৪ কেজি ২শ’ ১৬ গ্রাম ওজনের বিষ্ণুমূর্তিসহ ৩ জনকে আটক করলেও ১জন পালিয়ে যায়। এদিকে বিষ্ণুমূর্তিটি প্রকৃতপক্ষে কষ্টিপাথরের কিনা তা পরীক্ষার জন্য স্থানীয় কয়েকজন স্বর্ণকার দ্বারা পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে নিশ্চিত হয়েছেন যে, উদ্ধারকৃত বিষ্ণুমূর্তিটি প্রকৃত কষ্টিপাথরের। এ ব্যাপারে থানায় মামলা হয়েছে।
মোঃ হাসান আলী প্রধান