মোঃ ইমরান হোসেন, ঢাকা। পশু কোরবানির দিন দুপুর ২টা থেকে ২৪ ঘণ্টার মধ্যে রাজধানী থেকে বর্জ্য অপসারণের ঘোষণা দিয়েছেন ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মেয়র মোহাম্মদ সাঈদ খোকন। মঙ্গলবার নগর ভবনে দুই সিটি করপোরেশনের এক সমন্বয় সভায় মেয়র খোকন বলেন, “বর্জ্য ব্যবস্থাপনার কাজ সুষ্ঠুভাবে এবং দ্রুততম সময়ে সম্পন্ন করতে ছুটি বাতিলের এই সিদ্ধান্ত। ২৪ ঘণ্টার মধ্যে বর্জ্য অপসারণের পরিকল্পনার কথা জানিয়ে তিনি বলেন, “আমরা আশা করছি, নির্ধারিত সময়ের মধ্যেই কোরবানির পশুর বর্জ্য অপসারণ করতে পারব।” ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র আনিসুল হক বিদেশে চিকিৎসাধীন থাকায় এবার ঈদের আগে এই প্রস্তুতি সভা করা হয়েছে যৌথভাবে। মেয়র জানান, রাজধানীতে পশু কোরবানির জন্য ১ হাজার ১৭৪টি স্থান নির্ধারণ করে দেওয়া হয়েছে। এর মধ্যে দক্ষিণ সিটি করপোরেশনে ৬২৫টি এবং উত্তর সিটি করপোরেশনে ৫৪৯টি স্থানে পশু কোরবানি দেওয়া যাবে। কোরবানির পশুর বর্জ্য দ্রুত অপসারণে দুই সিটি করপোরেশনের বর্জ্য ব্যবস্থাপনা বিভাগের কর্মীদের ঈদের ছুটি বাতিল করা হয়েছে বলেও জানিয়েছেন তিনি। নির্ধারিত স্থানের বাইরে পশু কোরবানিতে কোনো নিষেধাজ্ঞা না থাকলেও পরিচ্ছন্নতা ও বর্জ্য ব্যবস্থাপনার সুবিধার জন্য গত কয়েক বছর ধরে আলাদাভাবে স্থান নির্ধারণ করে দেওয়া হচ্ছে সিটি করপোরেশন থেকে। এবারও নির্ধারিত স্থানে পশু কোরবানি দিতে সবার প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন মেয়র সাঈদ খোকন। তিনি বলেন, “আপনারা নির্ধারিত স্থানে পশু কোরবানি করুন। তাহলে আমাদের বর্জ্য অপসারণ করা সহজ হবে। বাড়ির ভেতরে কোরবানি করলেও নির্ধারিত ব্যাগে ময়লাগুলো বাইরে এনে রাখবেন।” কোরবানির পশুর বর্জ্য অপসারণের জন্য দক্ষিণ সিটি করপোরেশন আড়াই লাখ চটের ব্যাগ এবং উত্তর সিটি করপোরেশন ৪ লাখ ৫৫ হাজার পলিব্যাগ সরবরাহ করবে। মেয়র ধারণা দেন, এবার দুই সিটি করপোরেশন মিলিয়ে ঢাকায় প্রায় ৪ লাখ ৭৫ হাজার পশু কোরবানি হতে পারে। এই হিসেবে ঈদের তিন দিনে প্রায় ২৫ হাজার টন অতিরিক্ত বর্জ্য তৈরি হবে রাজধানীতে। বাংলাদেশের মুসলমানরা আগামী ২ সেপ্টেম্বর কোরবানির ঈদ উদযাপন করবেন।