মোজাম্মেল হোসেন কামাল, নোয়াখালী প্রতিনিধি ঃ নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার চরএলাহি ইউনিয়নের ৩ গ্রামে টর্ণেডোর আঘাতে লন্ডভন্ড হয়ে গেছে। অর্ধশত কাঁচা ঘরবাড়ি, পোল্ট্রি ফার্ম, দোকানপাট বিধ্বস্ত হয়েছে। এছাড়া টর্ণেডোর আঘাতে ঘরবাড়ি ভেঙে ও গাছপালার আঘাতে নারী-পুরুষ ও শিশুসহ কমপক্ষে ২০ জন আহত হয়েছে। বৃহস্পতিবার বিকালে জেলার কোম্পনীগঞ্জ উপজেলা চর এলাহি ইউনিয়নে এ ঘটনা ঘটে।
চরএলাহী ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ড চরনেংটা গ্রাম, ৩ ও ৪ নং ওয়ার্ড উত্তর চরএলাহি এলাকায় টর্ণেডোর আঘাতে ল-ভ- হয়ে যায়। টর্ণেডোর আঘাতে গুরুতর আহত হলেন- রওশন আরা, জরিনা বেগম, পুষ্প, পারুল বেগম, সুমাইয়া আক্তার, শহিদ উল্যাহ, ফারহানা আক্তার, সুমি, সেফালী বেগম, ফাতেমা বেগম, রৌশন আরা বেগম, জোসনা বেগম, পিংকি, সুবর্ণা, আবু মিয়া ও কিরণসহ অনেকেই।
চর এলাহী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আবদুর রাজ্জাক জানান, বৃহস্পতিবার বিকালে হঠাৎ কিছু বুঝে না ওঠার আগেই টর্ণেডো আঘাত হানে। এতে ওই এলাকার ৫০টিরও বেশী কাঁচা ঘরবাড়ি, ১৫টি পোল্ট্রি ফার্ম এবং দোকানপাট নিমিষে আকাশের দিকে উড়ে যায়। টর্ণেডোর পর এলাকাবাসী আহতদেরকে উদ্ধার করে বিভিন্ন সরকারী-বেসরকারী হাসপাতাল ক্লিনিকে পাঠায়।
টর্ণেডোর সংবাদ পেয়ে কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান বাদল, উপজেলা নির্বাহি কর্মকর্তা মোঃ জামিরুল ইসলাম, উপজেলা প্রকল্প কর্মকর্তা ফজলুল করিম, কোম্পানীগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ (তদন্ত) রবিউল হক, উপ-পুলিশ পরিদর্শক সাইফুদ্দিন, উপ-পুলিশ পরিদর্শক ইউ কেসিং চর এলাহী ইউনিয়নে গিয়ে ক্ষতিগ্রস্ত এলাকা পরিদর্শন করেন। ক্ষতিগ্রস্তদের খোঁজ খবর নেন।
উপজেলা নির্বাহি কর্মকর্তা মোঃ জামিরুল ইসলাম বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, প্রশাসনের পক্ষ থেকে আমরা খোঁজ খবর নিয়েছি, কয়েক জন আহত হয়েছে, কিছু বাড়ি-ঘর টর্ণেডোর আঘাতে ল-ভ- হয়ে গেছে। প্রাথমিক ভাবে আমরা দেখে যাচ্ছি। পরে জেলা প্রশাসন ও স্থানীয় মন্ত্রী মহোদয়ের সাথে আলোচনা করে ক্ষতিগ্রস্তদের চিকিৎসা ও বাড়িঘর নির্মানের সহযোগিতা করা হবে।