মোজাম্মেল হোসেন কামাল, নোয়াখালী প্রতিনিধি :

কোনো নির্দিষ্ট অভিযোগ না দেখিয়ে নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (নোবিপ্রবি) বিভিন্ন বিভাগের ৭ শিক্ষার্থীকে বহিষ্কার করায় এবং এ বিষয়ে আলোচনা করতে গেলে শিক্ষার্থীদের সাথে দূর্ব্যবহার করায় বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর মুশফিকুর রহমানের পদত্যাগ দাবিতে অবস্থান ধর্মঘট পালন করছে সাধারণ শিক্ষার্থীরা।।

বুধবার (২১ মার্চ) সকাল থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক ভবনে তালা ঝুলিয়ে এবং একাডেমিক ভবনের সামনে অবস্থান নিয়ে শিক্ষার্থীরা অবস্থান নিয়েছে। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত (বেলা সাড়ে ১১টা) শিক্ষার্থীরা এখনো ওই স্থানে অবস্থান করছে। অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে ঘটনাস্থলে সুধারাম থানা পুলিশ পরিদর্শন করে গেছে। তবে শিক্ষার্থীদের আন্দোলনে কোনো হস্তক্ষেপ করেনি।

সাধারণ শিক্ষার্থীরা জানায়, গত ৪ মার্চ কোনো সুনির্দিষ্ট অভিযোগ না দেখিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের (নোবিপ্রবি) বিভিন্ন বিভাগের ৭ শিক্ষার্থীকে বহিষ্কার করা হয়। এ বিষয়ে কয়েকবার প্রক্টর মুশফিকুর রহমানের দেখা করতে চাইলে তিনি শিক্ষার্থীদের এড়িয়ে যান। সর্বশেষ ২০ মার্চ মঙ্গলবার প্রক্টরের সাথে আলোচনা করতে গেলে তিনি অকথ্য ভাষায় শিক্ষার্থীদের সাথে দূর্ব্যবহার করেন।

শিক্ষার্থীরা আরো অভিযোগ করেন, মুশফিকুর রহমান প্রক্টর হওয়ার পর থেকেই সবসময় শিক্ষার্থীদের খারাপ আচরণ করে আসছেন। তিনি সামান্য কোনো ঘটনা ঘটলে বা তার মতের বাইরে গেলে সাধারণ শিক্ষার্থীদের একাডেমিকভাবে হয়রানি করেন। প্রায়ই কোনো সুনির্দিষ্ট অভিযোগ না দেখিয়ে যখন-তখন শিক্ষার্থীদের বহিষ্কারের হুমকি দেন এবং বহিষ্কার করেন। এ বিষয়ে প্রক্টর মুশফিকুর রহমানের মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হয়। তবে তাকে পাওয়া যায়নি।

নোবিপ্রবি’র ঊপাচার্য ড. এম অহিদুজ্জামান জানান, বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা আমাদের সন্তানের মত। কিস্তু সাধারণ শিক্ষার্থীদের মাঝে ভূতের আছর করেছে। তাদের মধ্যে শিবির ও সন্ত্রাসী চক্রের অপশক্তি ঢুকে পড়েছে। তারা শান্তিপ্রিয় নোবিপ্রবি ক্যাম্পাসকে অশান্ত করার ষড়যন্ত্র করছে। আমরা প্রশাসনিকভাবে কঠোর অবস্থানে আছি। কোনো অপশক্তিকে ছাড় দেওয়া হবে না।