ধর্ষণ মামলায় দোষী সাব্যস্ত হওয়া বিতর্কিত ভারতীয় গুরু রাম রহিম সিংয়ের রায়কে ঘিরে নিরাপত্তার চাদরে ঢেকে দেয়া হয়েছে হরিয়ানার রোহতক শহরকে। স্থানীয় পুলিশের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, সহিংসতা এড়াতে এখানে সাত স্তরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। এছাড়া রাস্তায় নামানো হয়েছে সেনাবাহিনীর বিশেষ টিম। তারপরও কেউ সহিংসতার চেষ্টা চালালে প্রথমে তাকে সতর্ক করা হবে। তাতে কর্ণপাত না করলে গুলি করা হবে।
ভারতীয় সংবাদমাধ্যমগুলো জানাচ্ছে, রোহতক কারাগারের বাইরের নিরাপত্তায় প্রায় ৩ হাজার আধা সামরিক বাহিনী মোতায়েন করা হয়েছে। এছাড়া কারাগারের আশপাশের সবকটি রাস্তা বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। হরিয়ানাসহ পার্শ্ববর্তী পাঞ্জাব, গাজিয়াবাদ ও নয়দাতে স্কুল-কলেজ বন্ধ রাখার নির্দেশ দেয়া হয়েছে।
জানা গেছে, রোহতকের সুনারিয়ার কারাগারে বন্দি রয়েছেন ডেরা সচ্চা সৌদার প্রধান গুরমিত রাম রহিম সিং। সোমবার দুপুরের মধ্যেই তার শাস্তির মেয়াদ শোনাবেন বিচারক। শুক্রবার সিবিআইয়ের বিশেষ আদালতের রায়ে দোষী সাব্যস্ত হয়েছেন রাম রহিম। রায় বের হতেই ডেরা সমর্থকদের লাগামছাড়া তাণ্ডবে মৃত্যু হয়েছে অন্তত ৩৮ জনের। তবে ডেরা সমর্থকদের না ঠেকাতে পারায় আঙুল উঠেছে স্থানীয় প্রশাসনের দিকে। সে দিনের কথা মাথায় রেখে আর কোনো রকম ঝুঁকি নিতে চাইছে না প্রশাসন।
নিরাপত্তার স্বার্থে কারাগারের মধ্যেই উড়িয়ে নিয়ে আসা হচ্ছে বিচারকসহ গোটা আদালতকে। সিবিআইয়ের বিশেষ আদালতের সেই বিচারক জগদীপ সিংহকে ইতিমধ্যেই বিশেষ নিরাপত্তা দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে কেন্ত্রীয় মন্ত্রীসভা। হাঙ্গামা ঠেকাতে ইতিমধ্যেই আটক করা হয়েছে প্রায় হাজার জনকে। ডেরার সদর দফতর থেকে সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়েছে ৩০ হাজার ভক্তকে। জেলায় মোতায়েন করা হয়েছে ২৮ কোম্পানি আধা সামরিক বাহিনী। এর আগে, রাম রহিমকে দোষী সাব্যস্ত করে রায় ঘোষণার দিন শুক্রবার সহিংসতায় অন্তত ৩৮ জনের মৃত্যু হয়। আহত হয় প্রায় ৩০০ জন। এনডিটিভি, টাইমস অব ইন্ডিয়া।