বিভিন্ন ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখায় শুক্রবার রাজধানীর র‌্যাডিসন ব্লু হোটেলে ১২ গুণীজনকে সম্মাননা দেয় আন্তর্জাতিক সংগঠন ‘হুজ হু’। বিভিন্ন ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখায় এ বছর চিত্রশিল্পী শাহাবুদ্দিন, কথাসাহিত্যিক সেলিনা হোসেন, নাট্যজন আলী যাকের, সাংবাদিক গোলাম সারওয়ার, কর্পোরেট ও সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব এম ই চৌধুরি শামীম, অধ্যাপক রফিকুল ইসলামসহ ১২ গুণী পেলেন হুজ হু সম্মাননা।
‘হুজ হু’ ১৮৪৯ সাল থেকে যুক্তরাজ্যসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশের অনুসরণীয় ও প্রভাবশালী ব্যক্তিদের সংক্ষিপ্ত জীবনী প্রকাশ ও পদক প্রদান করে আসছে।
শুক্রবার সন্ধ্যায় রাজধানীর রেডিসন ব্লু হোটেলে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত সম্মাননা পাওয়া গুণীজনদের হাতে সম্মাননা পদক তুলে দেন।
এ বছর আজীবন সম্মাননা পেয়েছেন প্যারীস প্রবাসী বিশিষ্ট চিত্রশিল্পী শাহাবুদ্দিন। এ ছাড়া সামাজিক কর্মকান্ডে অবদানের স্বীকৃতি হিসেবে ভ্যালেরি অ্যান টেইলর, সাংবাদিকতায় গোলাম সারওয়ার, শিক্ষাক্ষেত্রে অধ্যাপক রফিকুল ইসলাম, কৃষিতে অধ্যাপক ড. এম এ রহিম, শিল্প ও সংস্কৃতিতে নাট্যজন আলী যাকের ও কথাসাহিত্যিক সেলিনা হোসেন, ক্রীড়াক্ষেত্রে কাজী সালাহউদ্দিন, শিল্প-বাণিজ্যে এম এ রউফ, নারী উদ্যোক্তা হিসেবে মনোয়ারা হাকিম আলী এবং প্রবাসী বাংলাদেশি বিভাগে ড. শাহজাহান মাহমুদ সম্মাননা পেয়েছেন।
সম্মাননা প্রদান অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন জাতিসংঘের সাবেক স্থায়ী প্রতিনিধি ও ‘হুজ হু বাংলাদেশ’-এর প্রধান উপদেষ্টা ড. এ কে আবদুল মোমেন, প্রধান নির্বাহী নাজিনুর রহমান, কর্পোরেট মিডিয়া ব্যক্তিত্ব রাজু আলীম প্রমুখ।
অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত বলেন, এ বছর যাঁরা এই সম্মাননা পেয়েছেন এটি তাঁদের প্রাপ্য ছিল। সম্মাননাপ্রাপ্তরা আরও উৎসাহিত হবেন, নিজ নিজ ক্ষেত্রে আরও বেশি অবদান রাখবেন এবং তা দেশের মঙ্গল বয়ে আনবে।
কথাসাহিত্যিক সেলিনা হোসেন বলেন, পুরষ্কার যে কোনো কাজের স্বিকৃতি। তাই পুরষ্কার আনন্দের। তবে পুরষ্কার পাওয়ার পরে দ্বায়িত্বটা আরও বেড়ে যায়।
শিল্পী শাহাবুদ্দিন বলেন, পুরস্কার আনন্দের।
এম ই চৌধুরি শামীম বলেন, এই সম্মাননা পাওয়া খুবই গর্বের বিষয়। একইসাথে সকল গুণীজনদের সাথে এক ছাদের নিচে আসতে পারাটা অনেক আনন্দের।
গত বছর এই সম্মাননা পদক লাভ করেছেন Ñ স্যার ফজলে হাসান আবেদ, তোয়াব খান, অধ্যাপক আনিসুজ্জামান, শাইখ সিরাজ, সন্জীদা খাতুন ও কথাসাহিত্যিক হাসান আজিজুল হক, আকরাম খান, নিয়াজ রহিম, এম আনিস-উদ্দৌলা, প্রীতি চক্রবর্তী এবং ব্যারিস্টার মনোয়ার হোসেন প্রমুখ । আজীবন সম্মাননা পেয়েছেন আব্দুল গাফ্ফার চৌধুরী।