মোঃ ইউনুস আলী, লালমনিরহাট প্রতিনিধি:

লালমনিরহাটে তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে বাড়িঘর ভাংচুর ও লুটপাটের অভিযোগ উঠেছে। সে সময় উভয় পক্ষের সংঘর্ষে দুই ইউপি সদস্য আহত। মঙ্গলবার (২৪ অক্টোবর) সকালে সদর উপজেলার কুলাঘাট ইউনিয়নের সাকোয়া মন্ডলটারী গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

আহতরা হলেন, কুলাঘাট ইউনিয়ন পরিষদের ৯নং ওয়ার্ড সদস্য সেকেন্দার আলী ওরফে সেকেন (৩৭) ও সাবেক ইউপি সদস্য ছালেহ আহম্মেদ দুলাল।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানান, গত ইউপি  নির্বাচন থেকে বর্তমান ও সাবেক দুই ইউপি সদস্যের মাঝে ভোট নিয়ে দ্বন্দ বিরাজ করছে। রোববার ২২ অক্টোবর সন্ধ্যায় ঐ এলাকার টিকটিকি বাজারে স্থানীয় কবর স্থান সংস্কার নিয়ে একটি আলোচনা সভা বসে। সেখানে সাবেক ও বর্তমান দুই ইউপি সদস্যের লোকজনের মাঝে কথা কাটাকাটির এক পর্যয়ে উভয় পক্ষের ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে।

এতে বর্তমান ইউপি সদস্য সেকেন্দার আলী গুরুতর জখম হন। পরে স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করেন। এ ঘটনায় ইউপি সদস্য সেকেন্দার আলী বাদি হয়ে সদর থানায় একটি মামলা দায়ের করেন।

এ দিকে এ ঘটনার জের ধরে আহত ইউপি সদস্যের লোকজন ক্ষিপ্ত হয়ে পরদিন সোমবার সকালে সাবেক ইউপি সদস্য দুলাল ও তার পক্ষের আবুল হোসেনের ঘর বাড়ি ভাংচুর ও লুটপাট করে। এ ঘটনায় সোমবার রাতে আবুল হোসেনের স্ত্রী সোনাভান ও দুলালের স্ত্রী মমতাজ বেগম বাদি হয়ে সদর থানায় পৃথক দুইটি অভিযোগ দায়ের করেন।

থানায় অভিযোগ দায়ের করায় বর্তমান ইউপি সদস্য সেকেন্দারের লোকজন ক্ষিপ্ত হয়ে পুনরায় মঙ্গলবার সকালে সাবেক ইউপি সদস্য ছালেহ আহম্মেদ দুলালের বাড়িতে হামলা চালিয়ে তাকে মারপিট করে। এসময় তার আত্মচিৎকারে স্থানীয়রা এসে দুলালকে উদ্ধার করে প্রাথমিক চিকিৎসা প্রদান করা হয়।

এ ঘটনায় দুই পক্ষের মাঝে চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে। আবারো সংঘর্ষের আশংকায় সাকোয়া মন্ডলটারী এলাকার সাধারন মানুষদের মাঝে আতংক বিরাজ করছে।

লালমনিরহাট সদর থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাহফুজ আলম জানান, বিষয়টি পুলিশ নিয়ন্ত্রন করছে, সাধারনের আতংকের কিছু নেই। ঘটনাটি অত্যান্ত গুরুত্বসহকারে তদন্ত করা হচ্ছে বলেও জানান তিনি।