জাকির সিকদার, রাজাপুর (ঝালকাঠি) থেকে

ঝালকাঠির রাজাপুরে পুটিয়াখালি গ্রামে তুচ্ছ ঘটনার জেরে ব্যাটমিন্টনের ব্যাট দিয়ে বেধরক পিটিয়ে ও লাখি মেরে নির্যাতন করা হয়েছে আফরোজা আক্তার মিম (৬) নামে শিশু শ্রেনির এক ছাত্রীকে। মারধকরে শিকার শিশু ছাত্রী ঘটনার পর থেকে গুরুত্বর অসুস্থ্য হয়ে রাজাপুর স্বাস্থ্য কেন্দ্রে ভর্তি থাকায় বুধবারের বার্ষিক পরীক্ষার বাংলা বিষয়ে অংশ নিতে পারেনি। ব্যাটমিন্টন খেলা নিয়ে বিরোধের জেরে এ শিশুকে প্রতিপক্ষ একই এলাকার আব্দুল হক এজাহারের ছেলে মনির হোসেন (২৬) ও মেয়ে হাবিবা আক্তার (২৩) ওই শিশুকে মারধর করলে মিমের পরিবারের পক্ষ থেকে থানায় অভিযোগ দিলেও পুলিশ কোন ব্যবস্থা নেয়নি বলে অভিযোগ করেছেন তার পরিবার। মিম পুটিয়াখালি গ্রামের ঝালোবাড়ি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ১ম শ্রেণির ছাত্রী এবং দরিদ্র ভ্যানচালক আনোয়ার হোসেনের মেয়ে। মিমের মা পাখি বেগম ও বাবা আনোয়ার হোসেন অভিযোগ করে বুধবার রাতে জানান, মঙ্গলবার পরীক্ষা দিয়ে বাড়ি ফিরার পর এলাকার অন্য শিশুদের সাথে ব্যাটমিন্টন খেলছিলো হাবিবার মেয়ে শিশু তাহরিয়া। তাহরিয়া খেলতে না পারায় অন্য শিশুরা তাকে খেলতে না দেয়ায় তাহরিয়া বাড়িতে গিয়ে তার মা ও মামা মনিরকে বললে তারা এসে মিমকে ব্যাটমিন্টনের ব্যাট দিয়ে মাথা ও বুকসহ শরীরের বিভিন্ন স্থানে বেধরক পিটুনী দিয়েই খ্যান্ত হননি নিষ্ঠুর মনির ও হাবিবা। একাধিক লাথিও মারা হয় ওই শিশুর শরীরে। নির্যাতনের এক পর্যায়ে অজ্ঞান হয়ে যায় মিম, অভিযোগ মিমের মা-বাবার। আলগী গ্রামের সুমনের স্ত্রী হাবিবা উপজেলার বাদুরতলা এলাকায় ভাড়া বাসায় বসবাস করলেও প্রায়ই মেয়েকে নিয়ে বাড়িতে থাকেন। প্রতিপক্ষ মনির ও হাবিবার এক মামা পুলিশের কর্মকর্তা হওয়ায় রাজাপুর থানা পুলিশ এ ঘটনায় কোন ব্যবস্থা নেয়নি বলেও অভিযোগ করেন মিমের বাবা দরিদ্র ভ্যানচালক মনির। রাজাপুর থানার ওসি শামসুল আরেফিন অভিযোগ পাওয়ার কথা স্বীকার করে জানান, খোঁজখবর নিয়ে ব্যবস্থা নেয়া হবে।