যুক্তরাষ্ট্রের শীর্ষ রিপাবলিকান নেতা সিনেটর বব করকার বলেছেন, প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের টুইট তৃতীয় বিশ্বযুদ্ধ বাধিয়ে দিতে পারে। তিনি দেশকে সেই যুদ্ধের দিকেই নিয়ে যাচ্ছেন। রবিবার নিউ ইয়র্ক টাইমসকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে এই মন্তব্য করেন বব করকার। এর আগেও করকার বিভিন্ন সময় প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের সমালোচনা করেছেন। তার সঙ্গে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের দ্বন্দ্ব ক্রমেই বাড়ছে। এদিকে বার্তা সংস্থা রয়টার্সের জরিপে দেখা গেছে, গ্রামেও প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের জনপ্রিয়তা কমছে।
সিনেটর বব করকার বলেন, প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প টুইটের মাধ্যমে মানুষের মধ্যে আতংক তৈরি করছেন। তিনি প্রেসিডেন্সিকে ‘রিয়েলিটি শো’ মনে করছেন। তিনি অ্যাপ্রেন্টিসের (শিক্ষানবিশ) মতো ভূমিকা পালন করছেন। তিনি যুক্তরাষ্ট্রকে তৃতীয় বিশ্বযুদ্ধের দিকে নিয়ে যাচ্ছেন। এর আগে শনিবার এক টুইটার বার্তায় সিনেটের বৈদেশিক সম্পর্ক বিষয়ক কমিটির চেয়ারম্যান করকার বলেছিলেন, হোয়াইট হাউস যেন একটি ‘প্রাপ্তবয়স্কদের ডে কেয়ার সেন্টার’ এ পরিণত হয়েছে। তবে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প বলেছেন, করকার ফের নির্বাচন করতে চান। তিনি তার সমর্থন চেয়েছিলেন। কিন্তু তিনি দেননি। তাই ক্ষুব্ধ হয়েছেন করকার। তবে করকারের চিফ অব স্টাফ টড উডম্যাক সেই তথ্য অস্বীকার করেছেন।
রয়টার্সের জরিপে দেখা গেছে, সেপ্টেম্বরে গ্রামের ৪৭ ভাগ মানুষ প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পকে সমর্থন করছেন না। আর ৪৭ভাগ সমর্থন করছেন। অথচ ক্ষমতার প্রথম চার সপ্তাহে ৫৫ ভাগ ট্রাম্পের প্রতি সমর্থন জানিয়েছিলেন। এখন অবৈধ অভিবাসী ইস্যুতেও তিনি গ্রামের অনেকের সমর্থন হারাচ্ছেন। দেশটিতে ১৫ শতাংশ মানুষ গ্রামে বাস করেন। অন্যদিকে ড্রিমারদের নিয়ে যে কোনো চুক্তির বদলে মেক্সিকো সীমান্তে দেয়াল নির্মাণের অর্থের ছাড় করাতে চাইছেন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প। প্রায় ৭ লাখ নথিবিহীন তরুণকে যুক্তরাষ্ট্রে থাকা, কাজকর্ম করা ও শিক্ষা গ্রহণের সুযোগ দিয়ে ২০১২ সালে তৎকালীন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা যে আইন করেছিলেন, তা বাতিল করেছেন ট্রাম্প। সিএনএন।