ঝিনাইদহ প্রতিনিধিঃ
ঝিনাইদহ সদর উপজেলার পূর্ব তেঁতুলবাড়িয়া গ্রামের একটি কড়ই গাছে শালি দুলাভাইয়ের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। পুলিশের ধারণা একই রশিতে তারা ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছেন। বুধবার সকালে পুলিশ ওই গ্রামের পীরতলা মাঠের কড়াই গাছ থেকে তাদের মরদেহ উদ্ধার করে। প্রেমের কারণে তারা আত্মহত্যা করতে পারেন বলে পুলিশ প্রাথমিক ভাবে ধারণা করছে। মৃতরা হলেন পূর্ব তেঁতুলবাড়িয়া গ্রামের মন্টু মোল্লার ছেলে বিল্লাল হোসেন (২৫) ও একই গ্রামের সাখাওয়াত হোসেনের মেয়ে ও নারিকেলবাড়ীয়া জেড এম মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ৮ম শ্রেণির ছাত্রী কলি খাতুন (১৪)। নারিকেলবাড়িয়া পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ (এসআই) বদিউর রহমান ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে জানান, তিনি খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে তাদের মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য ঝিনাইদহ সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠিয়েছেন। ঝিনাইদহ সদর উপজেলার ঘোড়শাল ইউনিয়নের চেয়ারম্যান পারভেজ মাসুদ লিল্টন জানান, চার বছর আগে বিল্লাল হোসেনের সঙ্গে কলির বোন পিংকি খাতুনের বিয়ে হয়। তাদের ২ বছরের একটি সন্তানও রয়েছে। একপর্যায়ে দুলাভাই বিল্লাল হোসেনের সঙ্গে শালি কলির প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। গত ১০ দিন আগে তারা পালিয়ে যান। জানতে পেরে অনেক চেষ্টার পর গ্রামের গণ্যমান্য ব্যক্তিদের মাধ্যমে তাদের ফিরিয়ে আনা হয়। কিন্তু তাদের বিয়ে মেনে না নেওয়ায় মঙ্গলবার দিনগত রাতের কোনো এক সময় পীরতলা মাঠের একটি কড়ই গাছে একই রশিতে ঝুলে তারা আত্মহত্যা করেন। এদিকে এই ঘটনা সকালে জানাজানি হলে সকাল থেকেই হাজারো মানুষ ভিড় জমাতে থাকে তেতুলবাড়িয়া গ্রামে। দ্বিভুজ প্রেমের এই কাহিনী ও পরিণতি দেখে অনেকের হা-হুতাশ করতে দেখা গেছে। এদিকে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক স্থানীয়রা ও বিভিন্ন সুত্র থেকে জানা যায়, তাদের শরীরের পোষাক ও গাছে ব্যাগ ঝোলানো দেখে আত্মহত্যা না কি হত্যা সেটা যথেষ্ট সন্দেহ বিষয়, তাছাড়া আত্মহত্যার কি না সেটা পরিস্কার বোঝা যাচ্ছে না।