পচেফস্ট্রুমে প্রথম টেস্টে চতুর্থ দিনে দারুণ জুটি গড়ে তুলেছিল বাভুমা- ডু প্লেসিস। চতুর্থ উইকেটে তাদের ১৪২ রানের জুটিতে ভর করে দক্ষিণ আফ্রিকার লিড পৌঁছে গেছে ৩৮৮ রানে। অবশেষে ডু প্লেসিসকে ফিরিয়ে দিয়ে জুটি ভাঙ্গলেন মমিনুল।
মমিনুলের করা ৪৯ তম ওভারের পঞ্চম বলে সুইপ করতে গেলে এলবিডব্লিউয়ের ফাদে পড়েন ডু প্লেসিস। আউট হওয়া আগে ৮১ রান সংগ্রহ করে প্রোটিয়া অধিনায়ক। ডুপ্লেসিস আউট হওয়ার পরের ওভারেই পচেফস্ট্রুমে বৃষ্টি নেমে আসে। একারণে খেলা বন্ধ আছে।
বৃষ্টিতে খেলা বন্ধ হওয়ার আগ পর্যন্ত দ্বিতীয় ইনিংসে প্রোটিয়াদের সংগ্রহ ৪ উইকেটে ২১২।
এদিকে চতুর্থ দিনের শুরুতেই দক্ষিণ আফ্রিকার ব্যাটিং লাইনে আঘাত হানেন মুস্তাফিজুর রহমান। দলীয় ৭০ রানে তৃতীয় ব্যাটসম্যান হিসেবে হাশিম আমলাকে সাজঘরের পথ দেখান তিনি। মুস্তাফিজের বলে উইকেটের পেছনে লিটন দাসের হাতে ধরা পড়ার আগে প্রথম ইনিংসের সেঞ্চুরিয়ান আমলা করেছেন ২৮ রান। আমলার বিদায়ের পর ক্রিজে আসেন ডু প্লেসিস। তার আক্রমণাত্নক ব্যাটিংয়ে লাঞ্চ বিরতির আগেই ৩৫০ রানের লিড পেরিয়ে যায় দক্ষিণ আফ্রিকা।
এর আগে দুই উইকেটে ৫৪ রান নিয়ে রবিবার দুপুরে ফের দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাটিংয়ে নামে প্রোটিয়ারা। শনিবার তৃতীয় দিনের শেষ বেলাটা মোটামুটি স্বস্তিতেই পার করে বাংলাদেশ| দ্বিতীয় ইনিংসে মাত্র ৫৪ রানের মধ্যে দক্ষিণ আফ্রিকার ওপেনারকে ফেরত পাঠিয়েছে সাজঘরে। তবে প্রথম ইনিংসে ১৭৬ রানের বড় লিড পায় দক্ষিণ আফ্রিকা।
তিন উইকেটে ৪৯৬ রান করে দক্ষিণ আফ্রিকা প্রথম ইনিংস ঘোষণা করে। জবাবে বাংলাদেশ তাদের প্রথম ইনিংসে করেছে ৩২০ রান।