জাপানের সাধারণ নির্বাচন আজ রবিবার। নির্দিষ্ট সময়ের এক বছর আগেই দেশটিতে এ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হচ্ছে। আজকের নির্বাচনেও ক্ষমতাসীন প্রধানমন্ত্রী শিনজো অ্যাবের দলের জেতার সম্ভাবনা রয়েছে। তার প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী টোকিও গভর্নর ইউরিকো কোকি।
গত মাসে শিনজো অ্যাবে পার্লামেন্টের নিম্নকক্ষ ভেঙে দেন। জাতীয় বিভিন্ন সমস্যা এবং উত্তর কোরিয়ার পরমাণু ইস্যু এই নির্বাচনে গুরুত্ব পাচ্ছে। ৪৮তম পার্লামেন্ট নির্বাচনে ভোটদানের হার কম হবে বলেই ধারণা করা হচ্ছে। অ্যাবের সরকারের বিরুদ্ধে দুটি দুর্নীতি কেলেঙ্কারির অভিযোগ আছে। তবে অ্যাবে এসব কেলেঙ্কারিতে জড়িত থাকার অভিযোগ অস্বীকার করে আসছেন।
বিরোধী দল অভিযোগ করছে, নির্বাচনের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী এসব অভিযোগ থেকে নিজেকে বাঁচানোর চেষ্টা করছেন। বিশ্লেষকরা বলছেন, অ্যাবে মূলত উত্তর কোরিয়া ইস্যুকে নির্বাচনে জয়ের ক্ষেত্রে ব্যবহার করছেন। নির্বাচনে ১ হাজার ১৮০ প্রার্থী লড়াই করছেন। এর মধ্যে অ্যাবের লিবারেল ডেমোক্র্যাটিক পার্টি, সরকারের অংশীদার বুদ্ধিস্ট পার্টি হিসেবে পরিচিত কোমিয়েতো রয়েছে।
তাদের বিরোধী পার্টি হিসেবে আছে পার্টি অব হোপ। গত মাসে ইউরিকো কোকি এই পার্টি গঠন করেন। নির্বাচন পূর্ববর্তী বিভিন্ন জরিপে দেখা গেছে, ক্ষমতাসীন কোয়ালিশন দলগুলোর জেতার সম্ভাবনা রয়েছে। তারা দুই-তৃতীয়াংশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেতে পারে। এর ফলে সংবিধান সংশোধনে তাদের আর কোনো বাধা থাকবে না। আল জাজিরা।