চাঁপাইনবাবগঞ্জ পৌর এলাকার দ্বারিয়াপুর এলাকায় মাদ্রাসার ছাত্রীকে (১৪) ধর্ষণের অভিযোগে জাহাঙ্গীর আলম (৩২) নামে এক ব্যক্তিকে গত সোমবার রাতে গ্রেপ্তার করেছে সদর থানা পুলিশ। তিনি রাজশাহীর গোদাগাড়ী উপজেলার বালিগ্রামের সৈয়ব আলীর ছেলে। আহত অবস্থায় ছাত্রীটিকে চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছ। এ ব্যাপারে ওই ছাত্রীর মা মঙ্গলবার দুপুরে সদর থানায় একটি ধর্ষণ মামলা দায়ের করেছেন।
মামলার তদন্ত কর্মকর্তা সদর থানার উপপরিদর্শক (এসআই) রশিদুল ইসলাম ও ছাত্রীর মা জানান, গত সোমবার সন্ধ্যার আগে প্রাইভেট পড়ে বাড়ি ফিরছিল মেয়েটি। এসময় বাড়ি ফেরার পথে গলি রাস্তায় একা পেয়ে ছাত্রীটিকে পেছন থেকে মুখ চেপে ধরে ছুরি দেখিয়ে বাড়ির পেছনে নিয়ে গিয়ে ধর্ষণ করেন জাহাঙ্গীর আলম। রক্তাত্ত অবস্থায় বাড়ি ফিরে আসলে মেয়েটিকে সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ওই রাতেই পুলিশের কাছে অভিযোগ করা হয়। অভিযোগের প্রেক্ষিতে সোমবার দিবাগত রাত ১২টার দিকে জাহাঙ্গীর আলমকে গ্রেপ্তার করা হয়।
মামলার বাদী বলেন, আমার মেয়ে এখনো দারুণ অসুস্থ। তার রক্তক্ষরণ হচ্ছে। জাহাঙ্গীর আলম আমার ভাগ্নী জামাই। আমাদের বাড়ির পাশে শ্বশুর বাড়িতে বেড়াতে এসে তিনি এ ঘটনা ঘটিয়েছে। আমি এ ঘটনার দ্রুত বিচার চাই। জাহাঙ্গীর আলমের উপযুক্ত শাস্তি চাই।