পৃথিবীর অন্যতম আকর্ষণীয় সমুদ্র সৈকত হিসেবে যতটুকু পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন থাকার কথা কক্সবাজার সমুদ্র সৈকত ততটুকু নয়। তাই সামাজিক দায়বদ্ধতার অংশ হিসেবে ‘ক্লিন সি, সেভ সি’ স্লোগানকে সামনে রেখে বছরে বেশ কয়েকবার সুবিধাজনক সময়ে কক্সবাজার সমুদ্র সৈকত পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রাখার কর্মসূচি পালন করে ওয়ালটন।

এর মধ্য দিয়ে দর্শনার্থী ও অন্যদের সমুদ্র সৈকত পরিচ্ছন্ন করতে ও রাখতে উৎসাহিত করা হয়। বাড়ানো হয় সচেতনতা। এবারও তার ব্যতিক্রম হয়নি।

সোমবার বিকেলে কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতের লাবনী পয়েন্ট থেকে শুরু করে সুগন্ধা হয়ে কলাতলী পয়েন্ট পর্যন্ত এলাকাজুড়ে সচেতনতামূলক র‌্যালি করা হয়। সমুদ্র পরিষ্কার রাখুন, সমুদ্রের নির্মল পরিবেশ বজায় রাখুন, সমুদ্র বাঁচান- এই স্লোগান সম্বলিত লিফলেট সমুদ্র সৈকতে বেড়াতে আসা দর্শনার্থীদের মধ্যে বিতরণ করা হয়।

র‌্যালিতে অংশগ্রহণ করেন ওয়ালটন গ্রুপের অপারেটিভ ডিরেক্টর (হেড অব স্পোর্টস এন্ড ওয়েলফেয়ার) এফএম ইকবাল বিন আনোয়ার (ডন), কক্সবাজার জেলা ক্রীড়া সংস্থা, জেলা প্রশাসন, বিচ ম্যানেজমেন্ট কমিটি ও ট্যুরিস্ট পুলিশের কর্মকর্তাবৃন্দ।

শীর্ষস্থানীয় ক্রীড়া পৃষ্ঠপোষক প্রতিষ্ঠান ওয়ালটনের এমন কর্মসূচিকে সাধুবাদ জানান উপস্থিত সবাই।

এই কর্মসূচির বিষয়ে ওয়ালটন গ্রুপের কর্মকর্তা এফএম ইকবাল বিন আনোয়ার (ডন), ‘সামাজিক দায়বদ্ধতার অংশ হিসেবে আমরা প্রতি বছরই নির্দিষ্ট কিছু সময়ে এই কর্মসূচি পালন করে থাকি। এবারও তার ব্যতিক্রম হয়নি। এর মধ্য দিয়ে আমাদের দেশি পর্যটক ও অন্যদের সমুদ্র সৈকত পরিচ্ছন্ন করতে ও রাখতে উৎসাহিত করার চেষ্টা করছি। সবাইকে সম্পৃক্ত করার মাধ্যমে জনসংযোগ করে সচেতনতা বাড়ানোর চেষ্টা করি। যাতে সৃষ্টিকর্তার অনন্য এক দান আমাদের সবার প্রিয় কক্সবাজার সমুদ্র সৈকত আরো বেশি পরিস্কার-পরিচ্ছন্ন থাকে। দেশী-বিদেশি পর্যটকদের আরো বেশি আকৃষ্ট করে। ভবিষ্যতেও আমরা এই ধরনের কর্মসূচি অব্যাহত রাখার চেষ্টা করব।’