শাহারিয়া শাহাদাৎ, রিপোর্টার
চাঁপাই নবাবগঞ্জ:-বিএনপির সিনিয়র যুগ্ন মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেছেন, গণমাধ্যমে গত কয়েকদিন ধরে আপনারাই প্রচার করছেন কক্সবাজারে বিএনপির অফিস ঘেরাও করে ২২ ট্রাক ত্রাণ আটকে দেওয়া হয়েছে। বিএনপির উদ্যোগে সেইসব ত্রাণসামগ্রী রোহিঙ্গা শরণার্থীদের জন্য নিয়ে যাওয়া হচ্ছিল। অথচ সেটা নিয়ে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের মিথ্যা কথা বলছেন। বুভুক্ষু মানুষের ত্রাণ নিয়ে তিনি তামাশা করছেন। শনিবার দুপুরে চাঁপাইনবাবগঞ্জ শহরের সন্ধ্যা কমিউনিটি সেন্টারে সদর উপজেলা ও পৌর বিএনপির সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্য শেষে উপস্থিত সাংবাদিকদের তিনি এসব কথা বলেন।
সদর উপজেলা বিএনপির সভাপতি তসিকুল ইসলামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সম্মেলনে অন্যান্যের মধ্যে আরো বক্তব্য দেন, বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব সাবেক এমপি হারুনুর রশীদ, জেলা বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক সৈয়দা আসিফা আশরাফি পাপিয়া, সদর উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আমিনুল ইসলাম মতিসহ স্থানীয় নেতৃবৃন্দ।
প্রধান অতিথির বক্তব্যে রুহুল কবির রিজভী আওয়ামী লীগ সরকারের কড়া সমালোচনা করে বলেন-এই সরকারের আমলে গুম, খুন, ধর্ষণ আর লুটপাটের উন্নয়ন হয়েছে। বিএনপির অনেক নেতা-কর্মী গুম খুন হলেও প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ব্যর্থ হয়েছে। দেশে আজ গণতন্ত্র নেই, কোন কিছুতে স্বাধীনতা নেই। তিনি আগামীতে চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর আসনের সাবেক এমপি বিএনপির যুগ্ন মহাসচিব হারুনুর রশীদের নেতৃত্বে দলের পক্ষে মিলেমিশে কাজ করার আহবান জানান।
এদিকে চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা বিএনপির নেতৃবৃন্দ ছাড়াই সদর উপজেলা ও চাঁপাইনবাবগঞ্জ পৌর বিএনপির সম্মেলন আহবান করায় একই স্থানে প্রতিবাদ কর্মসূচি ঘোষণা করে জেলা বিএনপির বিবদমান একটি গ্রুপ। এ সময় জেলা বিএনপির সভাপতি রফিকুল ইসলাম টিপুর নেতুত্বে পার্শ্ববর্তী অক্ট্রয় মোড়ে বিএনপি ও যুবদলের নেতা-কর্মীরা সমবেত হয়। পরে বেলা ১১ টার দিকে বিএনপির যুগ্ন মহাসচিব হারুনুর রশীদ ও জেলা বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক সৈয়দা আসিফা আশরাফি পাপিয়ার বিরুদ্ধে বিক্ষোভ মিছিল নিয়ে সম্মেলন স্থলে যাওয়ার সময় সম্মেলনে অংশ নেওয়া হারুন-পাপিয়া গ্রুপের নেতা-কর্মীদের বাধার মুখে পড়ে। এ সময় উভয় গ্রুপের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া শুরু হয় এবং ইটপাটকেল নিক্ষেপ করা হয়। পরে পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। অক্ট্রয় মোড় সংলগ্ন এলাকা থেকে ২টি অবিস্ফোরিত ককটেল উদ্ধার করা হয়। আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে সম্মেলনস্থল, অক্ট্রয় মোড়সহ আশপাশের এলাকায় পুলিশ মোতায়েন করা হয়।