ঢাকা: ২৯ আগষ্ট, মঙ্গলবার ২০১৭:
টিকিট অব্যবস্থাপনা, কুলিদের হয়রানী, অতিরিক্ত ভাড়া আদায়ের নৈরাজ্য, টিকিট কালোবাজারী, ইজারাদারদের দৌরাত্বে ঈদযাত্রায় নৌ-পথের যাত্রীরা পদে পদে চরম হয়রানীর শিকার হচ্ছে বলে অভিযোগ করেছে বাংলাদেশ যাত্রী কল্যাণ সমিতি। এবারের ঈদে সারাদেশের নৌ-পথের যাতায়াতের পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ শেষে গণমাধ্যমে প্রেরিত এক বিবৃতিতে সংগঠনের মহাসচিব মো. মোজাম্মেল হক চৌধুরী এই অভিযোগ করেন।

বিবৃতিতে বলা হয়, এবারের ঈদুল আযহায় ঢাকাসহ সারাদেশে প্রায় ১ কোটি ১৫ লক্ষ মানুষ দেশের বিভিন্ন নৌ-পথ ব্যবহার করছে। গত কয়েকদিন ধরে সংগঠনের সেচ্ছাসেবকরা ঢাকার সদরঘাট, বরিশাল নদীবন্দর, চাঁদপুর নদীবন্দর, নারায়নগঞ্জ নদীবন্দর, মাওয়া ফেরী ঘাট, পাঠুরিয়া-দৌলদিয়া ফেরীঘাট, কুমিরা-গুপ্তছড়া, ভোলার মজুচৌধুরী ঘাট, কুতুদিয়ার মগনমা ঘাটসহ প্রায় ৫০টি ঘাট, নদীবন্দর ও নৌ-রুটে যাত্রী সেবা পরিস্থিতি পরিদর্শণ করে। এতে দেখা গেছে, এইসব ঘাটে কুলিরা যাত্রীদের লাগেজ- ব্যাগেজ নিয়ে টানাটানি ও অতিরিক্ত অর্থ আদায়কে কেন্দ্র করে যাত্রী সাধারণের সাথে চরম দূব্যবহারের ঘটনা ঘঠছে। এই ঘটনায় কোথাও কোথাও হাতাহাতি মারামারি পর্যন্ত রূপ নিচ্ছে। ঈদকে কেন্দ্র করে যাত্রী সাধারণের ঘাটে খেয়া পারাপারে .৫০ পয়সার টোলের ক্ষেত্রে ৫/১০ টাকা পর্যন্ত অতিরিক্ত টোল আদায়ের মহোৎসব চলছে, টিকিট অব্যবস্থাপনা, অতিরিক্ত ভাড়া আদায়ের নৈরাজ্য, টিকিট কালোবাজারী, লঞ্চের ডেকে চাদরের ব্যবসা চরম আকার ধারণ করেছে।

এছাড়াও যাত্রী ধারণ ক্ষমতার কয়েকগুণ বেশি যাত্রী নিয়ে চরম ঝুকিপূর্ণ ভাবে কিছু কিছু লঞ্চ চলাচল করতে দেখা গেছে। বর্তমানে যাত্রীদের নিরাপত্তা ব্যবস্থাতে চরম উদাসীনতা লক্ষ্য করা গেছে, যেমন লঞ্চে জীবন রক্ষাকারী লাইফ জ্যাকেট যাত্রীর প্রয়োজনের তুলনায় কম রাখা, এছাড়াও অনান্য নিরাপত্তামূলক সামগ্রী যাত্রীর তুলনায় অধিকাংশ লঞ্চে ৫ শতাংশও পাওয়া যায়নি। তবে কিছু কিছু লঞ্চ তাদের শর্ত পূরণ করেই যাত্রী পরিবহন করতে দেখা গেছে।

দেশের সড়ক মহাসড়কে যানজটের কারনে যাত্রী সাধারণ নৌপথকে গুরুত্ব দিলেও সদরঘাটসহ দেশের বিভিন্ন লঞ্চঘাট ও বিভিন্ন নদীবন্দরে দেখা গেছে, কোন কোন লঞ্চ ১ থেকে ৩ ঘন্টা দেরিতে ছাড়ছে। এবার প্রথম কাউন্টার সিস্টেমে টিকিট বিক্রির কথা থাকলেও স্থাপিত কাউন্টার গুলোতে কাউকে খুজে পাওয়া যাচ্ছে না। আবার নতুন নিয়মে টিকিট ছাড়া লঞ্চে আরোহনের সুযোগ না থাকায় যাত্রীরা চরম বিড়ম্বনার শিকার হচ্ছে। এছাড়াও পণ্যবাহী লঞ্চে ঝুকি নিয়ে যাত্রী বহন, পশুবাহী লঞ্চে যাত্রী বহন এবং যাত্রীবাহী লঞ্চে পশু বহনের কারনে যাত্রী নিরাপত্তা চরম ঝুকিতে পড়ছে।