ঢাকা, ১৬-৯-১৭ শনিবারঃ-

আরাকানে  ‘জাতিগত নিধনে’রোহিঙ্গাদের নির্বিচারে খুন,ধর্ষণ ও উচ্ছেদের বিরুদ্ধে জাতিসংঘের কার্যকরী ভুমিকা রাখার এখনই সময় । অবিলম্বে আরাকান থেকে বিতাড়িত রোহিঙ্গা শরণার্থীদের তাদের স্বদেশে প্রত্যাবর্তন নিশ্চিত করতে মায়ানমার সরকারের সাথে বাংলাদেশকে দ্বিপাক্ষিক আলোচনা শুরু করার আহবান জানাচ্ছি। এছাড়াও আরাকানের রোহিঙ্গাদের তাদের জন্মভূমিতে ফিরিয়ে নিয়ে গিয়ে জাতিসংঘের শান্তিরক্ষীবাহিনী মোতায়েন করার জন্য আমরা জাতিসংঘের প্রতিও আহবান জানাচ্ছি এবং এবিষয়ে বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনাকে জাতিসংঘে অনুষ্ঠিতব্য সম্মেলনে জোরালো ভূমিকা রাখার জন্য অনুরোধ করছি।” আরাকানে জাতিগত নিধনে’রোহিঙ্গাদের নির্বিচারে খুন, ধর্ষণ ও উচ্ছেদের প্রতিবাদে অনুষ্ঠিত মানববন্ধনে বাংলাদেশ জাতীয় জোট- বিএনএ ও তৃণমূল বিএনপি চেয়ারম্যান, সাবেক মন্ত্রী, বিশিষ্ট আইনজীবীও মানবাধিকার নেতা ব্যারিস্টার নাজমুল হুদা, এই দাবী জানান।

তিনি আরও বলেন, “মুসলমানদের  যেন কোনো মানবাধিকার থাকতে নেই। শান্তির জন্য নোবেল প্রাপ্ত অং সান সু চি’র নিরাপত্তা বাহিনী নিরাপরাধ রোহিঙ্গা শিশুদের খুন করছে, নারী ও শিশুর হাত বেঁধে  গাছের সঙ্গে ঝুলিয়ে মারছে, গ্রামের পর গ্রাম পুড়িয়ে দিচ্ছে, নিরীহ যুবকদের গাছের সঙ্গে বেঁধে হত্যা করছে। মানুষ বাস্তুভিটা ত্যাগ করে বাংলাদেশে পালিয়ে আসতে বাধ্য হচ্ছে। নাফ নদীতে ভাসছে রক্তাক্ত লাশের সারি। এমন বীভৎস, পৈশাচিক! কর্মকাণ্ডে মানবতাবাদে উদ্বুদ্ধ কেঊ চুপচাপ থাকতে পারেনা।

সরকারের প্রতি তিনি আহবান জানান ‘রোহিঙ্গাদের প্রতি মানবিক সহায়তা জোরদার করুন, আশ্রয়, খাদ্য, অনুদান ও চিকিৎসার ব্যবস্থা করুন। দ্রুত কূটনৈতিক সম্পর্ক  জোরদার করে রোহিঙ্গাদের মিয়ানমারে পাঠানোর ব্যবস্থা করুন।’

আজ ১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৭, শনিবার, সকাল ১০:৩০টা, জাতীয় প্রেস ক্লাবে বাংলাদেশ ন্যাশনাল এ্যালায়েন্স-এর জাতীয় কমিটির চেয়ারম্যান ব্যারিস্টার নাজমুল হুদার নেতৃত্বে মানব বন্ধন অনুষ্ঠিত হয় ।

বাংলাদেশ জাতীয় জোট-বিএনএ-র কো-চেয়ারম্যান (বিএলডিপি)-র চেয়ারম্যান এবং সাবেক মন্ত্রী জনাব এম. নাজিম উদ্দীন আল-আজাদ বলেন,“ ঐতিহাসিকভাবেই অরাকান রোহিঙ্গাদের আবাসভুমি। রোহিঙ্গারা আরাকানের ভুমিপুত্র। তাই ‘জাতিগত নিধনের’ লক্ষে অবিলম্বে রোহিঙ্গাদের নির্বিচারে খুন, ধর্ষণ ও উচ্ছেদ বন্ধ করতে হবে। এবং রোহিঙ্গাদের আরাকানে প্রত্যাবর্তন নিশ্চিত করে শান্তি ও স্থিতাবস্থা ফিরিয়ে আনতে মায়ানমার বাংলাদেশসহ জাতিসংঘকে এগিয়ে আসতে হবে। অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করেন বিএনএ নেতা তৃণমূল বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব মো. আক্কাস আলী খান।

এছাড়াও জোটের সাধারণ সম্পাদক মেজর ডা. শেখ হাবিবুর রহমানসহ বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ জাতীয় জোট-বিএনএ-র জাতীয় নেতৃবৃন্দের কৃষক-শ্রমিক পাটির্র চেয়ারম্যান লায়ন সালাম মাহমুদ, গণতান্ত্রিক মুক্তি আন্দোলন চেয়ারম্যান মোঃ আশরাফ আলী হাওলাদার, বাংলাদেশ আওয়ামী পার্টি সভাপতি আমান উল্লাহ শিকদার, বাংলাদেশ রিপাবলিক পার্টির সভাপতি-মুফাসসির অধ্যাপক বজলুর রহমান আমিনী, বাংলাদেশ মানবাধিকার পার্টির চেয়ারম্যান আফরোজা বেগম হ্যাপি প্রমূখ!