আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ও স্বাস্থ্য মন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম বলেছেন, আগামী নির্বাচন হবে আওয়ামী লীগ ও বিএনপি দুই দলের মধ্যে ফাইনাল খেলা। গতকাল সোমবার পাবনার সাঁথিয়ার ধুলাউড়ি উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে বাউসগাড়ী গণহত্যা দিবস পালন উপলক্ষ্যে প্রধান অতিথির ভাষণে এ কথা বলেন তিনি।
তিনি বলেন, এ খেলায় বিএনপি ফাউল করলে জনগণ তাদের লাল কার্ড দেখাবে। আমরা খালি মাঠে খেলতে চাই না। বিএনপিকে সাথে নিয়ে খেলেই জয় লাভ করতে চাই।
তিনি বিএনপিকে উদ্দেশ্য করে বলেন, নির্বাচন ছেড়ে আপনারা পালাবেন না। আগামী নির্বাচনে জয় লাভের মাধ্যমে শেখ হাসিনা হ্যাট্রিক জয়লাভ করবে।আমরা চাই, খালেদা জিয়া জেলে থাকলেও বিএনপি নির্বাচনে অংশগ্রহণ করবে। খালেদা জিয়াকে আওয়ামীলীগ জেলে দেয়নি। এতিমদের টাকা আত্মসাত করায় আদালত তাকে জেলে দিয়েছে। খালেদা জিয়া তিন মাস জেলে থাকলেও বিএনপি আনন্দোলন করে গাছের একটি পাতাও নড়াতে পারেনি।
তিনি আরও বলেন, সামনের নির্বাচন অতি ভয়াবহ ও গুরুত্বপূর্ণ। ৭০ সালে জনগণ আওয়ামী লীগকে ভোট দিয়েছিল বলে দেশ স্বাধীন হয়েছিল। ডিসেম্বরের নির্বাচন মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় জঙ্গিবাদকে উৎখাত ও উন্নয়নের নির্বাচন।
নাসিম আরও বলেন এবারের নির্বাচন সংবিধান অনুযায়ী শেখ হাসিনার অধিনেই হবে। ২০১৪ সালের নির্বাচনে খালেদা জিয়াকে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রীসহ গুরুত্বপূর্ণ ৫টি পদ দেওয়ার প্রস্তাব দিলেও তিনি তা প্রত্যাখান করেন। শেখ হাসিনা বাংলাদেশের লাল সবুজ পতাকাকে স্যাটালাইটের মাধ্যমে মহাকাশ পর্যন্ত নিয়ে যাওয়ায় বিএনপি নেতা মির্জা ফখরুলের মাথা ঘুরপাক খাচ্ছে। হায়নাদের দল ভিতরে বাইরে ষড়যন্ত্রে লিপ্ত রয়েছে। আগামী নির্বাচন বিজয়ের মাসে অনুষ্ঠিত হবে। উন্নয়নের ধারাবাহিকতা বজায় রাখতে তিনি নৌকায় ভোট দিয়ে শেখ হাসিনকে আবার ক্ষমতায় আনার আহ্বান জানান।
পাবনা-১ আসনের এমপি এ্যাড: শামসুল হক টুকুর সভাপতিত্বে জনসভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেন নারায়ানগঞ্জ-৪ আসনের এমপি শামীম ওসমান, ইসলামী ফাউন্ডেশনের মহাপরিচালক শামীম মোহাম্মাদ আফজাল, আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য নুরুল ইসলাম ঠান্ডু, পাবনা জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান রেজাউল রহিম লাল, সাঁথিয়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার জাহাঙ্গীর আলমসহ জেলা ও উপজেলা নেতৃবৃন্দ।